হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার

হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে সচেতন না হলে ভবিষ্যতে সারা জীবনের প্যারালাইসিস হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সেজন্য সকলেরই উচিত হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে জেনে রাখা।হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার করতে হলে অবশ্যই আমাদেরকে এর সম্পর্কে জ্ঞান রাখতে হবে। চলুন তাহলে জেনে নেই হাত-পা অবসর কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে।

এই পোস্টে আজকে আলোচনা করা হবে হাত পা অবশের কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে এবং হাত-পা অবশ্যই চিকিৎসা , হাত পা দুর্বল লাগে কেন , বাম হাত অবশের কারণ ও প্রতিকার। হাত পায়ে শক্তি না পাওয়ার কারণ ইত্যাদি সম্পর্কে।

হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার

প্রিয় পাঠক আপনার নিশ্চয় জানতে চাচ্ছেন হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে আপনি যদি না জেনে থাকেন হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে তাহলে আজকের এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।বিভিন্ন বয়সী মানুষেরই এই হাত-পা অবশ হয়ে যাওয়ার সমস্যা দেখা দিতে পারে। বর্তমান বিশ্ব অতিরিক্ত প্রযুক্তি নির্ভর হওয়ার কারণে আমরা শারীরিক পরিশ্রম হাটা চলা খুব কম পরিমাণে করে থাকি এর কারণে আমাদের বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা হয়ে থাকে যার মধ্যে হাত-পা অবশ হয়ে যাওয়া অন্যতম একটি সমস্যা। হাত পা অবশের কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানতে হলে আমাদের প্রথমেই ডাক্তারি পরামর্শ গ্রহণ এবং ক্লিনিক্যাল টেস্ট করা প্রয়োজন। তারপরেও হাত পা অবশের সম্ভাব্য কিছু কারণ এবং প্রতিকার নিচে দেওয়া হল
  • রক্ত চলাচলে বাধা
  • নিউরোলজিক্যাল বিভিন্ন সমস্যার কারণে
  • থাইরয়েডের সমস্যার কারণে
  • শারীরিক ব্যায়াম কম করার কারণে
  • গর্ভাবস্থায় বিভিন্ন জটিলতার কারণে
  • অ্যালকোহল গ্রহণের ফলে
  • ভিটামিন জনিত ঘাটতির কারণে
  • স্ট্রোকের কারণে
  • হার্টের সমস্যার কারণে
  • মস্তিষ্কে আঘাত লাগার ফলে
  • কিডনি ,ডায়াবেটিস ইত্যাদি অসুখের কারণে
  • অতিরিক্ত মানসিক চাপ বা ডিপ্রেশনের কারণে
হাত-পা অবসর প্রতিকারঃ হাত-পা অবশের প্রতিকার হিসেবে আপনাকে বিভিন্ন ধরনের থেরাপি নিতে হবে যেমন ফিজিওথেরাপি, বিভিন্ন রকম হিট থেরাপি , অয়েল মাসাজ থেরাপি , হাত পায়ের ব্যায়াম, অতিরিক্ত ওজন নিয়ন্ত্রণে আনা, অ্যালকোহল জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলা , পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করা, প্রচুর পরিমাণে ফল খাওয়া । এছাড়া ডাক্তারি পরামর্শ অনুযায়ী হার্ট ,ডায়াবেটিস , কিডনি ইত্যাদি রোগ গুলো নিয়ন্ত্রণে রাখা। নিয়মিতভাবে প্রতিদিন কিছুটা সময় হাঁটাচলা করা। হাত-পা অবশে কারণ এবং প্রতিকার এর উপায় গুলো নিজে নিজে প্রয়োগ না করে ডাক্তারি পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োগ করুন।

হাত পা অবশ হওয়ার প্রতিকার

স্নায়ু রোগবিদ দের মতে সাধারণত নিউরো সমস্যার কারণে মানুষের হাত-পা অবশ হওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। হাত-পা অবশ হয়ে যাওয়া এটি খুব একটি সাধারণ বিষয় নয়। এই কারণে হাত-পা অবশ হয়ে যেতে দেখলে দেরি না করে শুরুতেই ডাক্তারি পরামর্শ গ্রহণ করা উচিত। হাত পা অবশ হওয়ার শিকার হিসেবে আপনি বেশ কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে দেখতে পারেন, হাত পা অবশের কারণ ও প্রতিকার পদ্ধতি
গুলো হলো,

হিট থেরাপিঃ হাত বা পা যেটাই অবশ বোধ হোক না কেন সেখানে আপনি প্রাথমিক অবস্থায় ভিড় থেরাপি প্রয়োগ করে দেখতে পারেন। এই হিট থেরাপি হাত-পা অবশেষে খুব ভালো একটি ঘরোয়া পদ্ধতি হিসেবেও কাজ করে। গরম কিছু দিয়ে আপনার অবশ হওয়া জায়গা গুলোতে চাপ দিন এতে আপনার শরীরের রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক হবে এবং হাত পায়ের অবশ ভাব দূর হবে।

অয়েল ম্যাসাজ থেরাপিঃ কোন অবস্থানে অলিভ অয়েল বা সরিষার তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে সেখানকার দূর হয়। অয়েল মাসাজ এর মাধ্যমেও শরীরের রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া স্বাভাবিক হয়, আ মানুষের হাত-পা বা বিভিন্ন অঙ্গ অবসর পেছনে ঠিক মতন রক্ত সঞ্চালন না হওয়াকে দায়ী করা হয়। যেহেতু অয়েল মাসাজের মাধ্যমে শরীরে রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া ঠিক থাকে তাই অয়েল মাসাজ করলে হাত পা এর অবসতা দূর হয়।

হলুদ এর ব্যবহারঃ দুধের মধ্যে কিছুটা হলুদ গুড়া মিশিয়ে প্রতিদিন পান করাগেলে শরীরের অবসতা দূর হয়। হলুদ হলুদের মধ্যে এমন কিছু উপাদান রয়েছে যা আমাদের শরীরের রক্ত চলাচল প্রক্রিয়াকে ঠিক রাখে, হলুদ শুধু আমাদের হাত-পায়ের অবসতা দূর করে না আমাদের শরীরের বিভিন্ন জায়গার ব্যথা দূর করতেও এটি বেশ ভালো কার্যকর উপাদান।

দারুচিনিঃ দারুচিনিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং ভিটামিন বি। দারুচিনি তে থাকা এই উপাদান গুলো হাত-পা এর অবসতা দূর করতে সাহায্য করে।

ব্যায়াম করাঃ আমরা সবাই জানি ব্যায়াম আমাদের রক্ত চলাচল ঠিক রাখি এই কারণে প্রতিদিন অন্ততপক্ষে ১৫ থেকে ৩০ মিনিট হালকা-পাতলা ব্যায়াম করলে শরীরের অনেক জটিলতা দূর হয়। শারীরিক জটিলতা গুলোর মধ্যে হাত-পা অবস হওয়ার সমস্যাটিও রয়েছে। সুতরাং নিয়মিত কিছুক্ষণ ব্যায়াম করলে হাত পায়ের অবসতা দূর হবে।

হাত-পা দুর্বল লাগে কেন

বর্তমানে অনেক রোগী অভিযোগ করে থাকে যে তাদের হাত-পা দুর্বল লাগে এবং হাত-পায়ে শক্তি পায় না। সাধারণত হাত-পা দুর্বল রাগার প্রধান কারণ হলো রক্ত সঞ্চালন ঠিক না হওয়া। আপনার হাতে বা পায়ে যদি রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া ঠিক না থাকে তাহলে আপনার হাত-পা দুর্বল লাগতে পারে, এছাড়াও হাত পা দুর্বল লাগার আরো বেশ কিছু কারণ থাকতে পারে।
  • ব্রেন টিউমারের ফলে হাত-পায়ে দুর্বলতা অনুভব হয়
  • মেয়েদের গর্ভাবস্থায় হাত-পা দুর্বল লাগা অস্বাভাবিক কিছু নাই ,এটি হতে পারে
  • মাথায় জোরে আঘাত লাগার ফলে এই আঘাত হাত পায়ের বিভিন্ন শিরা-উপশিরার উপরে প্রভাব ফেলে , যার কারণে হাত পায়ের দুর্বলতা অনুভব হয়।
  • শরীরে ভাইরাসজনিত কোন রোগের সংক্রমণ থাকলে
  • শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি থাকলে হাত পায়ে শক্তি কম পাওয়া যায় এবং দুর্বল লাগে
  • অনেক সময় রক্তস্বল্পতার কারণে ও হাত পায়ে শক্তি কম পাওয়া যায়
  • থাইরয়েডের রোগীদের বেশিরভাগ সময় হাত পায়ে দুর্বলতা অনুভব হয়
  • বিভিন্ন রোগের কারণে উচ্চমাত্র অ্যান্টিবায়োটিক দীর্ঘদিন খাবার ফলে এই সমস্যাটি হতে পারে
  • পিঠে আঘাত লাগার ফলে অথবা মেরুদন্ডের কোন সমস্যা থাকলে হাত পা দুর্বল লাগে
উপরেউক্ত সব কারণগুলোই হাত-পা দুর্বল লাগার সম্ভাব্য কারণ। আপনি যদি আপনার হাতে বা পায়ে দুর্বলতা অনুভব করেন তাহলে ডাক্তারি পরামর্শ মোতাবেক এর সঠিক কারণ নির্ণয় করে চিকিৎসা গ্রহণ করুন।

হাত অবশের কারণ ও প্রতিকার

হাত অবশ হওয়ার কারণঃসাধারণত বিভিন্ন ধরনের স্নায়বিক জটিলতার কারণে হাত অবশ হওয়ার প্রধান কারণ । এছাড়াও মস্তিষ্কে যদি রক্ত সঞ্চালন ঠিকমতন না হয় সে ক্ষেত্রেও হাত অবশ হতে পারে। উচ্চ রক্তচাপের ফলে অনেক সময় স্ট্রোক হয়। যদি ছোটখাটো কোন স্ট্রোক হয় তাহলে সেটির প্রভাব শরীরে সেভাবে বোঝা যায় না কিন্তু স্ট্রোক হওয়ার লক্ষণগুলোর মধ্যে প্রধান এবং প্রথম লক্ষণ হচ্ছে হাত অবশ হয়ে যাওয়া। এছাড়াও দীর্ঘক্ষণ হাতের উপরে ভর দিয়ে একইভাবে কোন কাজ করা বা বেশিক্ষণ হাতের উপরে চাপ দিয়ে থাকলেও হাতে অবশ ভাব লক্ষ্য করা যায়। এছাড়াও ক্যান্সার , টিউমার এবং রক্তনালী গুলোতে আঘাত বা চাপ লাগার কারণে হাত অবশ হয়ে যেতে পারে।

প্রতিকারঃ আপনি যদি কোন কারণে হাতে অবসতা লক্ষ্য করেন তাহলে সর্বপ্রথমে আপনাকে যে কাজটি করতে হবে সেটি হল আপনার হাতের রক্ত চলাচল প্রক্রিয়াটি ঠিক করার ব্যবস্থা করতে হবে। রক্ত চলাচল প্রক্রিয়া কি স্বাভাবিক করার জন্য আপনি বিভিন্ন ধরনের থেরাপি ইউজ করতে পারেন যেমন, হিট থেরাপি , অয়েল মাসাজ থেরাপি ইত্যাদি।

এছাড়াও হাতের অবসতা দূর করতে হাতের ছোটখাটো ব্যায়ামগুলো করার চেষ্টা করুন। যেমন, হাত উঠা নামা করা, হাতের আঙ্গুলগুলো নড়াচড়া করানো । বারবার হাত মুষ্টিবদ্ধ করা এবং খোলা ইত্যাদি এতে আপনার হাতে রক্ত সঞ্চালন ঠিক হবে এবং আপনার হাতের অবশভাব দূর হবে। এছাড়া হাতের অবস্থা দূর করতে বিভিন্ন ধরনের ম্যাগনেসিয়াম , পটাশিয়াম এবং প্রোটিন জাতীয় খাবার গ্রহণের চেষ্টা করুন।

হাত-পায়ে শক্তি না পাওয়ার কারণ

হাত পায়ে শক্তি না পাওয়া বর্তমানকালে খুবই সাধারণ একটি অসুখে পরিণত হয়েছে । আসুন এবার জেনে নেওয়া যাক হাত পায়ে শক্তি না পাওয়ার কারণ গুলো।হাত - পায়ে শক্তি না পাওয়ার প্রধানত তিনটি কারণ রয়েছে এ কারণগুলো হলো - স্ট্রোক, রক্ত সঞ্চালন না এবং শারীরিক দুর্বলতা ও রক্তস্বল্পতা। এর কারণগুলো ছাড়াও হাত-পায়ের শক্তি না পাওয়ার পেছনে ডি বি এস নামক অসুখের হাত রয়েছে,এটি সাধারণত একটি স্নায়ুর ওষুধ। এই রোগের ফলে শরীরের বিভিন্ন স্নায়ু আক্রান্ত এবং ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং যার ফলে হাত বা তাই কম পাওয়া যায়।

হাত-পা অবসের চিকিৎসা

হাত-পা অবশ হয়ে গেলে দ্রুত ডাক্তারের কাছে গিয়ে প্রথমে এর কারণ উদঘাটন করুন এবং পরে সে অনুযায়ী হাত-পা অবসরের চিকিৎসা করুন। হাত পা অবশের চিকিৎসা নির্ভর করে প্রধানত এর কারণ গুলোর উপরে ভিত্তি করে। হাত-পা অবসের চিকিৎসা গুলোর মধ্যে রয়েছে-ফিজিওথেরাপি , হিট থেরাপি , অয়েল মাসাজ থেরাপি ,প্লাজমা থেরাপি, হার্টবিট নিয়ন্ত্রণে রাখা , উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা, ডাক্তারি পরামর্শ মোতাবেক হাত পায়ের ব্যায়াম করা।

হাতে শক্তি না পাওয়ার কারণ

রক্ত চলাচল স্বাভাবিক না থাকা এটি প্রধান এবং অন্যতম কারণ হাতে শক্তি না পাওয়ারক্ষেত্রে, এছাড়া বিভিন্ন ধরনের স্নায়বিক অথবা নিউরো জটিলতা বা অসুবিধার কারণে হাতের শক্তি পাওয়া যায় না। বা হাতে শক্তি না পাওয়ার কারণগুলোর মধ্যে এই কারণগুলো প্রধান এবং উল্লেখযোগ্য কারণ হলেও আরো কিছু বিশেষ কারণ রয়েছে হাতে শক্তি না পাওয়ার যেমন,
  • একটানা অনেকক্ষণ কম্পিউটার , ল্যাপটপ ,মোবাইল অথবা অন্যান্য ডিভাইস গুলোটাইপ করা
  • থাইরয়েডের সমস্যার কারণে গর্ভবতী অবস্থায় বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দেয় এর মধ্যে হাতে শক্তি না পাওয়া একটি সমস্যা
  • অতিরিক্ত অ্যালকোহল জাতীয় খাবার খাওয়ার ফলে হাত অবশ হয়ে যেতে পারে
  • ভিটামিনের ঘাটতিজনিত কারণে বিশেষ করে ভিটামিন বি টুয়েলভ এর কারণে হাত অবশ হয়।
  • স্ট্রোক হলে মস্তিষ্কের ভেতরে অনেক চিকন চিকন শিরা-উপশিরা যায় এর ফলে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয় যার কারণে হাত অবশ হয়ে যাওয়াসহ আরো বিভিন্ন সমস্যা হতে পারে
হাত পা অবশ হওয়ার ঔষধ
হাত-পা অবশ হওয়ার এলোপ্যাথিক ওষুধঃ বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে হাত-পা অবশ্যই যাওয়ার আসল কারণ বের করে সেই অনুযায়ী ডাক্তারি পরামর্শ মত এন্টিবায়োটিক অথবা ভিটামিন জাতীয় এবং নিউরোলজিক্যাল ওষুধ গুলো সেবন করতে পারেন, হাত-পা অবশেষ এলোপ্যাথিক কিছু ওষুধের নাম নিচে দেওয়া হল
  • Neobion
  • Neugaba
  • Sergel
  • V3N
হাত-পা অবশ হয়ে যাওয়ার হোমিও ঔষধঃহাত-পায়ে অবসতা দেখা দিলে, এর কারণ উদঘাট করে সেই অনুযায়ী হাত-পা অবশ হওয়ার ঔষধ সেবন করলে ধীরে ধীরে এটি সম্পূর্ণ ঠিক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা । অবশই সঠিক কারণ নির্ণয় করে, রোগীর আচরণ এবং বৈশিষ্ট্য বিবেচনার মাধ্যমে যদি সঠিকভাবে হোমিও সূত্র করা যায় তাহলে রোগী সম্পন্ন সুস্থ হয়ে উঠতে পারে। হাত পা অবশ হওয়ার কার্যকরী হোমিও গুলো
হলো,
  • এপিস মেল
  • জেল সিনিয়াম
  • অ্যালুমিনা
  • লাইকোপোডিয়াম
  • রাসটক্স
  • ডালকামারি
  • একগারিকাস
  • চাইনা
  • আর্সেনিক অ্যালবাম
  • সালফার
  • ওপিয়াম
  • নাক্স ভোম
  • লিডাম পাল
  • ব্যারাইটা কার্ব

বাম হাত অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার

বাম হাত অবশের কারণঃ হার্টের সমস্যার কারণে বাম হাত অবশ হয়ে যায় অথবা অবস ভাব হয়। হার্টের অক্সিজেনের মাত্রা কম হলে বাম হাত অবশ হয়ে যেতে পারে। মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণ এর কারণে বাম হাত অবশ হয়ে যায়। এছাড়া বার্ধক্যজনিত কারণে, ঠিক মতন রক্ত চলাচল না করার কারণে , বিভিন্ন ভিটামিনের অভাবে , রক্তশূন্যতার কারণে , শারীরিক দুর্বলতার কারণে , বাম হাতের রক্তের শিরা গুলোর
উপরে অতিরিক্ত চাপ পড়ার কারণেবাম হাত অবশ হয়ে যেতে পারে। স্ট্রোক করলে বাম হাত সহ অন্যান্য অঙ্গ অবশ হয়ে যায়।

হাত পা অবশ এর প্রতিকারঃ হাত পা অবশ এর প্রতিকার করতে হলে অবশ্যই জানতে হবে,
হাত-পা অবশ হয়ে যাওয়ার পেছনে কারণ কি। সঠিক কারণ বের করার পরে সেই অনুযায়ী
আপনাকে বিভিন্ন ধরনের থেরাপি ইউজ করতে হবে, অন্য ধরনের মাসাজ করাতে হবে এছাড়া
বিভিন্ন পুষ্টিকর খাবার , উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। হাতের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যায়ামগুলো রেগুলার করতে হবে। হাতের উপরে একটানা বেশিক্ষণ চাপ দিয়ে কোন কাজ বা টাইপিং করা যাবে না। অ্যালকোহল জাতীয় খাবার থেকে দূরে থাকতে হবে। ভিটামিনের ঘাটতি দূর করতে হবে।

ঘুমের মধ্যে হাত পা অবশ হয় কেন

ঘুমের মধ্যে হাত পা অবশ হয় কেন এই ধরনের অভিযোগ প্রায়ই অনেকে করে থাকেন। অনেকের দেখা যায় চিত হয়ে বেশিক্ষণ শুয়ে থাকলে অথবা কাত হয়ে শুয়ে থাকলে কিছুক্ষণ পর এপার ওপার হতে বা হাত-পা নড়াতে অসুবিধা হয় এবং হাত পায়ে অবস ভাব হয়। ঘুমের মধ্যেই একটানা একইভাবে একইভাবে শুয়ে থাকার কারণে হাত-পা অবশ হতে পারে।

ঘুমের মধ্যে অনেকক্ষণ নড়াচড়া না করে একইভাবে শুয়ে থাকা হয় যার ফলে আমাদের শরীরের বিভিন্ন শিরা-উপুশিরা গুলোতে রক্ত চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে আর এর ফলে ঘুমের মধ্যে হাত-পা অবশ হয়ে যেতে পারে । তাছাড়া পেরিফেরাল নামক অসুখের কারণে ঘুমের মধ্যে হাত-পা অবশ্যই যাই। দীর্ঘদিন ধরে কিডনি থাইরয়েড হরমোন, ডায়াবেটিস ইত্যাদি অসুখের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণেও ঘুমের মধ্যে হাত-পা অবশ হয়। আরেকটি সমস্যার কারণে ঘুমের মধ্যে অথবা ঘুম থেকে ওঠার পরে হাত পা অবশ হয় একে বলা হয় স্লিপ প্যারালাইসিস।

শেষ কথা

উপরোক্ত পোষ্টের মাধ্যমে আপনারা জানতে পেরেছেন হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে, হাত-পা অবসর ব্যাপারে শুরু থেকেই সচেতন হন এবং এর প্রতিরোধ করার ব্যবস্থা করুন। না হলে আপনি সারা জীবনের জন্য পঙ্গু অথবা প্যারালাইসিসে আক্রান্ত হয়ে যেতে পারেন। সেই জন্য শুরু থেকেই হাত পা অবশ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে ভালোভাবে জানুন এবং সেই অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করুন।


পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url