ফেমিকন খাওয়ার নিয়ম - ফেমিকন খাওয়ার অপকারিতা

প্রিয় পাঠক আপনি যদি ফেমিকন বা লাল পিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন কিভাবে ফেমিকন খেতে হয় ও খাওয়ার নিয়ম এবং লাল পিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফেমিকন খাওয়ার নিয়ম ও লাল পিল খাওয়ার নিয়ম।
ফেমিকন খাওয়ার নিয়ম - লাল পিল খাওয়ার নিয়ম
আপনি যদি ফেমিকন খাওয়ার সঠিক নিয়ম এবং লাল পিল খাওয়ার সঠিক নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। এ পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ফেমিকন বা  লাল পিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে। 

ফেমিকন খাওয়ার কত দিন পর সহবাস করা যায়

প্রিয় পাঠক আপনি যদি ফেমিকন খাওয়ার কত দিন পর সহবাস করা যায় জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। কেননা আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ফেমিকন খাওয়ার কত দিন পরে আপনি সহবাস করতে পারবেন বা করা যায় সেই সম্পর্কে। 

ফেমিকন খাওয়ার কত দিনের মধ্যে সহবাস করা যায় জানতে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফেমিকন খাওয়ার কত দিন পর সহবাস করা যায়। প্রথমেই বলে রাখা ভালো যে ফেমিকন খাওয়ার জন্য অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।
ফেমিকন খাওয়ার দ্বিতীয় দিন থেকে আপনি সহবাস করতে পারবেন এবং দিনে যতবার ইচ্ছা ততবার করতে পারবেন। ফেমিকন খাওয়ার সময় হলো মাসিক না হওয়া পর্যন্ত আপনি সহবাস করতে পারবেন। পরবর্তীতে যদি আপনার মাসিক না আসে তাহলে আপনাকে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে অবশ্যই।

ফেমিকন খাওয়ার কত দিন পর মাসিক হয়

আপনি যদি ফেমিকন খাওয়ার কত দিন পর মাসিক হয় জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ফেমিকন খাওয়ার কত দিন পরে মাসিক হয়ে থাকে সেই সম্পর্কে। 

ফেমিকন খাওয়ার কতদিন পরে থেকে মাসিক হওয়া শুরু হয় জানতে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফেমিকন খাওয়ার কত দিন পর মাসিক হয়।

প্রতিদিন একটি করে 21 দিন 21 টি সাদা মুড়ি খাওয়া ঠিক পরদিন থেকে প্রতিদিন একটি করে সাত দিনের সাতটি বাদামের রঙের পিল খেতে হবে। বাদামি রঙের পিল খাওয়ার সময় সম্ভবত আপনার মাসিক হবে। মাসিক শুরু হলেও বাদামের রং এর পিল খাওয়া বন্ধ করে দিবেন না। 

বাদামি বিল নিয়মিত সাত দিন খেলে লৌহ সল্পতা পরিপূর্ণ ছাড়াও পিল খাওয়ার কিছু নির্দিষ্ট সময় ঠিক থাকবে। এই সময়ের মধ্যে আপনার যদি মাসিক না হয়ে থাকে তাহলে আপনি অন্তঃসত্ত্বা কিনা সেটার জন্য ডাক্তারের পরীক্ষা করতে হবে।

প্রথমবার পিল খাওয়ার নিয়ম

আপনি যদি প্রথমবার পিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন প্রথমবার এর জন্য পিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে। শুরুতেই পিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

 তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক প্রথমবার পিল খাওয়ার নিয়ম। অনেকের রয়েছে যারা লজ্জার কারণে কোন পরামর্শ ছাড়াই পিল খাওয়া শুরু করে দেয়। যার ফলে কিছুদিন খাওয়ার পর উল্টাপাল্টা হওয়ার কারণে অনেক সমস্যা দেখা দেয়।
বাজারে অনেক ধরনের পিল পাওয়া যায় তাই সঠিকভাবে সবকিছু নিয়ম বলা সম্ভব না। তাই সেই অনুযায়ী আপনারা যে পিলগুলো ব্যবহার করবেন বা খাবেন সেগুলোর প্যাকেটের ভিতরে কাগজে দেখতে পাবেন সেই কাগজের সকল বিধি নিয়ম এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেওয়া রয়েছে। ভালো করে সবগুলো পড়ে সঠিকভাবে আপনি এই নিয়মগুলো জানতে পারবেন। 

সবগুলো পিলের কোম্পানির নিয়ম এক না হওয়ার কারণে সঠিকভাবে বলা যাবে না আবার সবগুলোর ব্যবহার একভাবে হয় না।

ফেমিকন পিলের কার্যকারিতা কত ঘন্টা

আপনি নিশ্চয়ই ফেমিকন পিলের কার্যকারিতা কত ঘন্টা জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ফেমিকন পিল এর কার্যকারিতা কত ঘন্টা পর্যন্ত থাকে সেই সম্পর্কে। 

পিলের কার্যকারিতা কত ঘন্টা পর্যন্ত থাকে জানতে হলে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফেমিকন পিলের কার্যকারিতা কত ঘন্টা। আপনি যদি একবার ফেমিকন খাওয়া শুরু করেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই একমাস পর্যন্ত ফুলডোজ খেতে হবে।

আপনি যদি হঠাৎ করে একদিন খেতে ভুলে যান তাহলে পরের দিন সেই একই সময়ে দুইটি একসাথে খেতে হবে। ফেমিকন পিলের কার্যকারী সময় এক মাস পর্যন্ত থাকে। অর্থাৎ আপনাকে এটি একমাস পর্যন্ত খেতে হবে।

লাল পিল খাওয়ার নিয়ম

আপনি যদি লাল পিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন কিভাবে লাল পিল খাওয়া যায় এবং খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে। লালপিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

 তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক লাল পিল খাওয়ার নিয়ম। বাজারে অনেক ধরনের পিল পাওয়া যায় তাই সঠিকভাবে সবকিছু নিয়ম বলা সম্ভব না। তাই সেই অনুযায়ী আপনারা যে পিলগুলো ব্যবহার করবেন বা খাবেন সেগুলোর প্যাকেটের ভিতরে কাগজে দেখতে পাবেন সেই কাগজের সকল বিধি নিয়ম এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেওয়া রয়েছে। 

ভালো করে সবগুলো পড়ে সঠিকভাবে আপনি এই নিয়মগুলো জানতে পারবেন। সবগুলো পিলের কোম্পানির নিয়ম এক না হওয়ার কারণে সঠিকভাবে বলা যাবে না আবার সবগুলোর ব্যবহার একভাবে হয় না।

ফেমিকন খাওয়ার অপকারিতা

আপনি নিশ্চয়ই ফেমিকন খাওয়ার অপকারিতা সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ফেমিকন খেলে এর কি অপকারিতা রয়েছে সেই সম্পর্কে। 

ফেমিকনের অপকারিতা সম্পর্কে জানতে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফেমিকন খাওয়ার অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত। অন্যান্য ধরনের সকল জন্মনিয়ন্ত্রণকারী ঔষধের মতো ফেমিকনের ও কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে। এই ওষুধ সেবনের ফলে মাথা ঘোরা, বমি বমি ভাব, অথবা পিরিয়ড ছাড়াও যৌন পথে হালকা রক্তের ফোঁটা বের হতে পারে। 

প্রথমদিকে এই সমস্যাগুলো একটু বেশি হয়ে থাকে এবং দুই থেকে তিন মাস পর তার সম্পূর্ণরূপে কমে যায়। তবে আপনার যদি সমস্যার পরিমাণ বেড়ে যায় তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

ফেমিকন এর দাম কত

আপনি যদি ফেমিকন এর দাম কত জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ফেমিকনের দাম সম্পর্কে। ফেমিকনের দাম সম্পর্কে জানতে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

 তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফেমিকন এর দাম কত সেই সম্পর্কে। বাজারে অনেক ধরনের এবং অনেক কোম্পানির ফেমিকন পাওয়া গেলেও সব কোম্পানির ফেমিকনের দাম গুলো প্রায়। বর্তমানে ফেমিকনের দাম ৩৬ টাকা করে। 

অনেক স্থানে রয়েছে যারা 40 টাকা করে নিয়ে থাকে। এতে অবশ্য এলাকাভিত্তিক দাম নির্ভর করে। ফেমিকন হল জন্ম নিয়ন্ত্রণকারী একটি ঔষধ। এই ওষুধটি সেবনের ফলে আপনার বাচ্চা হবে না। এই ওষুধটি আপনি যেকোনো ফার্মেসির দোকানে পাবেন। এর সঠিক মূল্য হল ৩৬ টাকা মাত্র।

ফেমিকন কেন খায়

আপনি নিশ্চয়ই ফেমিকন কেন খায় জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ফেমিকন কেন খাওয়া হয় বা কেন খেয়ে থাকে সেই সম্পর্কে। ফেবিকন কেন খেয়ে থাকে জানতে হলে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। 

তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফেমিকন কেন খায়। ফেমিকন সেবন করা হয় জন্মনিয়ন্ত্রণকারী পিল হিসেবে। তিন নিয়মিত সেবনের উপযুক্ত যা সেবনে কোন পদ্ধতি অবলম্বন না করে আপনি সহবাস করতে পারবেন কিন্তু আপনি অন্তসত্ত্বা হতে পারবেন বা হবে না।

এই ওষুধটি মূলত খাওয়ার কারণ হচ্ছে বাচ্চা না নেওয়া। যারা বাচ্চা নিতে চাচ্ছেন না তারা এই ওষুধটি সেবন করে থাকে। ফেমিকন খাওয়ার কারণে বাচ্চা হওয়া থেকে বিরত থাকা যায়।

শেষ কথা

উপরোক্ত আলোচনা সাপেক্ষে এতক্ষণে নিশ্চয় ফেমিকন ও লাল পিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আপনার যদি এই পর্বটি সম্পর্কে কোন মতামত থেকে থাকে তবে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন এবং আজকের পর্বটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তবে অবশ্যই বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করবেন।
পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url