সহজ কিস্তিতে লোন - সহজ কিস্তিতে লোন বাংলাদেশ

আমাদের দেশে অধিকাংশ ছেলে মেয়ে রয়েছে যারা তাদের পড়ালেখা শেষ করে বেকার জীবন অতিবাহিত করছে।অর্থাৎ কর্মসংস্থান বা চাকুরীতে প্রবেশ করতে পারছে না।প্রয়োজনের তাগিদে শিক্ষিত বেকার ছেলেরা ঘরে বসে না থেকে তারা সব সময় নতুন কিছু করতে উদ্যোগ নেয়। এখন আপনি যদি কোন ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠান চালু করতে চান তাহলে আপনি স্বল্প পরিমাণ টাকা বা আর্থিক ভাবে সচ্ছল না হওয়ার কারনে  কোন ব্যবসা শুরু করতে পারছেন না। 


এর জন্য আপনার অনেক টাকার বা মূলধনের প্রয়োজন হবে। নতুন উদ্যোক্তাগন যারা রয়েছেন তারা ব্যবসা করার জন্য তাদের যে  স্বল্প পরিমাণ পুঁজি রয়েছে তা দিয়ে কোন ব্যবসা শুরু করা যায় না।তাই তারা বাধ্য হয় বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে থাকেন। ফলে ঋণ নেওয়ার ফলে প্রচুর টাকা সুদ দিতে হয়। তাই  বর্তমানে বাংলাদেশ সরকার আপনাদের সুবিধার্থে অনেক সহযোগী প্রকল্প চালু করেছে। যেমন একটি হলো অনলাইন।

ভূমিকা

সহজ কিস্তিতে লোন হলো এমন একটি ঋণ যা সহজে পাওয়া যায়। যা একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ কিস্তিতে এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরিশোধ করতে হয়। এমন সব ঋণ গ্রহণকারীর জন্য ঋণের কিস্তির পরিমাণ,ঋণে সুদের হার এবং ঋণের পরিমাণ সহ ঋণের জন্য প্রদত্ত সকল শর্তাবলী আগে থেকে তাদের জানা থাকে। এতে করে ঋণ গ্রহীতাদের জন্য ঋণ পরিশোধ করাটা সহজ হয়ে যায়।

সহজ কিস্তিতে লোনের সুবিধা  গুলো হল

এখানে ঋণ গ্রহীতার  কিস্তির পরিমাণ, ঋণের পরিমাণ ও সুদের হার তারা আগে থেকেই জানে। এতে করে ঋণটা পরিশোধের পরিকল্পনা করা  তাদের জন্য সহজ হয় এবং ঋণের বোঝাটাও  বহন করা  সহজ হয়ে যায়। খুব সহজ শর্তে লোন পাওয়া যায়। এবং এই ঋণের টাকা ব্যবসায় কাজে লাগিয়ে খুব সহজে ঋণ পরিশোধ করা যায়। কেননা এই ঋণের কিস্তি এবং সময় সম্পর্কে গ্রাহক আগে থেকে জেনে রাখে।

সহজ কিস্তিতে লোনের অসুবিধা গুলো হল

এসব ঋণে  সুদের হার  বেশিই  হয় এবং তার সাথে ঋণটা পরিশোধ করার জন্য সময়টা কম থাকে। এসব ঋণের টাকা আপনি যদি ব্যবসায়ী বাদে অন্য খাতে ব্যবহার করেন তাহলে আপনার জন্য লোন পরিষদের সময় অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এখানে লোন ইন্টারেস্ট একটু বেশি হয় এবং সময়টা ইন্টারেস্টের তুলনায় একটু কম থাকে। তবে ব্যবসায়িক কাজে সঠিক ভাবে ব্যবহার করলে এই অসুবিধাগুলো আপনার সামনে আসবে না।

ঋণ পাওয়ার যোগ্যতা

সহজ কিস্তিতে লোন নেওয়ার জন্য সাধারণত  কিছু যোগ্যতার  প্রয়োজন হয়।  সেগুলো হল:

 ১)ঋণ গ্রহীতাকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে।

২)ঋণ গ্রহীতার বয়স 18 বছর বা তা থেকে বেশি হতে হবে। 

৩)ঋণ গ্রহীতার একটি স্থায়ী ঠিকানা থাকতে হবে।

৪) তার একটি নিদিষ্ট পরিমাণ  মাসিক আয় থাকতে হবে সে সাপেক্ষে তাকে ঋণ দেওয়া হবে।

সাধারণত লোন করার  জন্য  যেসব কাগজপত্র অবশ্যই প্রয়োজন হয় সেগুলো হচ্ছে:

১.আবেদনপত্র একটি।

২.ঋণগ্রহীতার পাসপোর্ট সাইজের ছবি।

৩.ঋণ গ্রহীতার মাসিক আয়ের  একটি বিবরণ এর প্রমাণপত্র।

৪. জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি।

৫. একটি স্থায়ী ঠিকানার প্রমাণ পত্র।


সহজ কিস্তিতে লোন নেওয়ার জন্য নিম্নলিখিত ধাপ গুলো অনুসরণ করতে হবে

ক)যেখান থেকে লোন করবেন সেই সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে লোন এর জন্য তাদের আবেদন পত্র থাকে সে আবেদনপত্র টি সংগ্রহ করুন।

খ)আবেদন পত্রটির জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সমূহ দিয়ে পূরণ করুন এবং তার সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো সংযুক্ত করুন।

গ)আপনার পূরণকৃত আবেদনপত্রটি ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানে কাছে জমা দিন। আপনার আবেদনটি যাচাই করে লোন অনুমোদন বা বাতিল করবে ঋণ প্রদান কারী প্রতিষ্ঠান।

ঘ)ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান যদি ঋণ অনুমোদন করে তাহলে হলে ঋণগ্রহীতা এবং ঋণদাতার উভয়ের মাঝে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে।

ঙ)ঋণগ্রহীতা তার প্রদত্ত ঋণটি পাবে চুক্তি স্বাক্ষরের পর।

 ঋণদাতা প্রতিষ্ঠান সমূহ 

bkash:

 ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আপনি ঋণ  নিতে পারবেন  মাত্র ৯% সুদের হারে,এই  ঋণের মেয়াদ হবে  তিন মাস পর্যন্ত। এখানে ঋণ গ্রহীতা  তার ঋণটি পরিশোধ করতে পারবেন তিনটি মাসিক কিস্তির মাধ্যমে।

বর্তমান সময়ে বিকাশ আ্যাপটি প্রায় সকলে ব্যবহার করেন তাই ধরতে গেলে বিকাশ অ্যাপ প্রত্যেক মানুষের হাতে হাতে বিকাশের রয়েছে। আপনারা ঋণ নিতে পারবেন এই বিকাশ অ্যাপ এর মাধ্যমে।

সিটি ব্যাংক

বর্তমানে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত দেবে সিটি ব্যাংক বিকাশ ব্যবহার কারীদের।  অনেক সুবিধা  রয়েছে এই ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে যেমন এখানে কোন ধরনের জামানত লাগবে না আপনার ঋণটি নিতে। ঋণ নিতে আবেদনের কোন নথিপত্র জমা দিতে হবে না এখানে।

 বিকাশ অ্যাপস এর মাধ্যমে ক্লিক করে কয়েক সেকেন্ডের মাধ্যমে এই ঋণ টি আপনি পেয়ে যাবেন সরকারি খাতের এই ব্যাংক এটি কে ডিজিটাল ঋণ বলেছে ।

 এতদিন ঋণ নেওয়ার কোনোই সুযোগ ছিল না  কিন্তু মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে অনেক রকমের আর্থিক লেনদেনের সেবা  চালু ছিল বিকাশে।  এখন থেকে বিভিন্ন লোনের ব্যবস্থা করেছে বিকাশ ব্যবহারকারীদের জন্য মোবাইল সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান।

দেশে প্রথমবারের মতো জামানত বিহীন ইন্সট্যান্ট ডিজিটাল ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে এসেছে সিটি ব্যাংক। বছরব্যাপী পাইলট প্রকল্প সফলভাবে সম্পন্ন করার পর। এখন বিকাশ ব্যবহারকারীরা এখান থেকে সহজে ক্ষুদ্র ঋণ নিতে পারব এই সুবিধার কারণে।

বিকাশ অ্যাপ থেকে ঋণ পাওয়ার যোগ্যতা

 আপনার বিকাশ একাউন্টটি পুরাতন হতে হবে যদি আপনি বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে ঋণ নিতে চান অথবা প্রচুর পরিমাণ লেনদেন করা থাকতে হবে  একাউন্টটি র মাধ্যমে। সাধারণত এখানে লেনদেনের উপর ভিত্তি করে আপনাকে ঋণ দেয়া হবে।  আপনি লোনের জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন না যদি আপনার একাউন্ট  থেকে লেনদেন না করেন বছরে ছয় মাসে, সামান্য টাকা শুধু লেনদেন করেন।আপনি যদি  লোন নিতে চান  তাোহলে আপনার একাউন্টি অবশ্যই এক্টিভ  থাকতে হবে।

মাত্র ৯০০ টাকা সহজ কিস্তিতে  লোন পাবেন যেভাবে

 বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন  ঋণ দিচ্ছে আবাসন খাতে জমি বা ফ্লাইট কিনা ও মেরামতের জন্য দীর্ঘমেয়াদী বা বাড়ি নির্মাণের জন্য আর ৯ শতাংশ সরল সুদে এই ঋণ পরিশোধ করা যাচ্ছে। প্রতি লাখে মাসিক কিস্তি দিতে হবে ৯০০ টাকা যা সর্বোচ্চ ২০ বছের এই ঋণ পরিশোধ করা যাবে।

প্রতি মাসে ২০৭৬টাকা করে ৫ বছরে, মাসিক ১২৬৮ টাকা করে ১০ বছরে, মাসিক ১০১৪ টাকা করে ১৫ বছর কিস্তি দিতে হবে, আর ২০ বছরের জন্য প্রতি মাসে কিস্তি আসবে সর্বনিম্ন ৯০০ টাকা। সর্বোচ্চ 20 বছরের জন্য বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্যএবং সর্বোচ্চ 15 বছর মাসিক কিস্তিতে পাবেন যারা প্রবাসে আছেন তারা এ ঋণ পরিশোধ করতে পারবেন । ১৮ থেকে ৬৫ বছর বয়সীরা শর্ত সাপেক্ষ এই ঋণ সুবিধা টি পাবে,তবে তাদের অবশ্যই বাংলাদেশের প্রকৃত নাগরিক হতে হবে।

সহজ কিস্তিতে লোন দেয় যেসব ব্যাংক

 আপনি সহজ কিস্তিতে অনেক  ব্যাংক থেকেই  ঋণ নিতে পারবেন। কেননা  টাকা পরিশোধ করার সুযোগ প্রতিটি ব্যাংকেই চালু আছে। নিচে দেওয়া ব্যাংকগুলো  সহজ কিস্তিতে  ঋণ  দিয়ে থাকে  যা আপনি একবার  দেখে নিতে পারেন।

বাংলাদেশ ব্যাংক

সোনালী ব্যাংক

গ্রামীন ব্যাংক

ডাচ বাংলা ব্যাংক

এক্সিম ব্যাংক

আইএফআইসি

বিডিএফসি

ব্রাক ব্যাংক

প্রথম আলো ব্যাংক

জয়েন্ট স্টেট ব্যাংক

উপরে দেয়া ব্যাংক সমূহে সহজ কিস্তিতে লোন  পেয়ে  যাবেন আপনি ।

শেষ কথা

আপনারা যারা বেকার তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেলটি অনেক উপকারে আসবে। কেননা এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন কীভাবে সহযোগিতা পাওয়া যায় এবং একটি ব্যবসা দাঁড় করানো যায়। এই আর্টিকেল সম্পর্কে যদি আপনার কোন মতামত থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url