নারীদের ঘরে বসে কাজ - ঘরে বসে মেয়েদের হাতের কাজ

কিছু বছর আগেই ছেলে ও মেয়েকে সমান চোখে দেখা হতো না। মেয়েদের বাইরে কাজ করারও তেমন সুযোগ ছিল না। কিন্তু বর্তমান যুগ আধুনিক যুগ। এই যুগে ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েরাও বাহিরে কাজ করতে পারে।পরিবারের দায়িত্ব নিতে পারে। 


ছেলে ও মেয়ে উভয় মিলে দেশের উন্নয়নের জন্য কাজ করছে। আবার অনেক মেয়েরাও আছে যারা ঘরে বসেই টাকা ইনকাম করে। এর জন্য তাদের বাহিরে যাওয়া প্রয়োজন হয় না। প্রিয় পাঠক এই পর্বে আমরা জানবো ঘরে বসে নারীরা কিভাবে টাকা ইনকাম করবে বিস্তারিত বিষয় জানতে হলে পুরো পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

নারীদের ঘরে বসে কাজ করার পাঁচটি উপায়ঃ

নারীদের ঘরে বসে কাজ করার বিভিন্ন মাধ্যম রয়েছে। এই মাধ্যম গুলো ব্যবহার করে নিয়মিত অর্থ উপার্জন করতে পারেন। বর্তমান সময়ে ছেলেদের পাশাপাশি নারীরাও অর্থ উপার্জন করছে। দেশের উন্নয়নেও ভূমিকা রাখছে। বাংলাদেশের জনসংখ্যার মধ্যে প্রায় অর্ধেকই হল নারী। তাই দেশের উন্নয়ন করতে হলে অবশ্যই নারীদের ও ছেলেদের পাশাপাশি কাজ করতে হবে।তারা কাজ করতে হবে যে শুধু দেশের উন্নয়ন করছে তা কিন্তু নয়।তারা দেশের উন্নয়নের পাশাপশি পরিবারের দয়িত্বও নিতে পারছে।

ইউটিউবে ভিডিও আপলোড

মেয়েদের ঘরে বসে কাজ করার একটা অন্যতম মাধ্যম হলো ইউটিউব। এটি মেয়েদের ঘরে বসে কাজ করার জন্য একটি উপযোগী মাধ্যম। আপনি রান্না করায় অনেক এক্সপার্ট কিংবা অন্যান্য আরো যেসব কাজে আপনি এক্সপার্ট সেসব কাজের উপরে ভিডিও আপলোড করতে পারবেন। আবার এইসব ভিডিওর পাশাপাশি যে কোন প্রোডাক্টসের প্রমোশনাল ভিডিও করতে পারবেন। 


এতে করে আপনি দুই দিক থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবন। এছাড়াও ইউটিউবে আরো বিভিন্ন ধরনের ভিডিও আপলোড করা হয়। আপনি চাইলে আপনার পছন্দমত কোন একটি বিষয়ের ওপর ভিডিও আপলোড করতে পারবেন। আবার যে কোন বিষয়ে শিক্ষামূল  ভিডিও আপনি করতে পারবেন। তাই ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করতে হলে আপনাকে যেকোনো একটি বিষয় বেছে নিতে হবে। এরপর সে বিশ্বের ওপরেই ভিডিও আপলোড করতে হবে

টাকা ইনকাম হয় মূলত আপনার একটি ভিডিও কতজন মানুষ দেখেছে। আপনার ভিডিও যত মানুষ বেশি বেশি দেখ বে আপনার অর্থ পর্যন্ত। তবে ইউটিউবে টাকা ইনকাম করার পূর্বে কিছু শর্ত রয়েছে সেগুলো আপনাকে পূরণ করতে হবে তারপরে আপনি ইউটিউব এ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

সেই শর্তগুলো হলোঃ ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করতে হলে অন্তত ১০০০ ভিউয়ার্স হতে হবে। এছাড়াও আরো কিছু শর্ত রয়েছে এই শর্তগুলো পূরণ করার পর। সেই শর্তগুলো পূরণ করার পর আপনার চ্যানেলকে আপনি গুগল এডসেন্স এর সাথে যুক্ত করতে পারবেন। গুগল এডসেন্স হলো একটি অনলাইন বিজ্ঞাপন প্ল্যাটফর্ম যেখানে আপনি আপনার ভিডিওর বিজ্ঞাপন দেখে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

অনলাইন টিউশন

বর্তমান যুগ এতটাই ডিজিটাল হয়ে গেছে যে, ঘরে বসে এখন পড়াশোনা করা যায়। পড়াশোনা করা পাশাপাশি অনলাইনে টিউশনিও করা যায়। আর এটি মেয়েদের ঘরে বসে কাজ করার অন্যতম একটি মাধ্যম। আপনি বাইরে গিয়ে টিউশনি না করে যদি অনলাইনে টিউশনি করতে পারেন এতে আপনার অনেক লাভ হবে। আপনি ঘরে বসে খুব সহজে এই কাজটি করতে পারবেন। 


অনলাইন টিউশন করতে হলে, আপনাকে এর বিষয়ে সম্পূর্ণ ধারণা থাকতে হবে। আপনি এটি ইউটিউব এর কোন ভিডিও দেখে শিখে নিতে পারবেন।আর এমনিতেও বর্তমানে যে কোন বাবা-মা তাদের সন্তানদের বাইরে ছাড়তে দ্বিধাবোধ করেন। আরে অনলাইন টিউশনের ফলে তাদের এই চিন্তাটা অনেকটাই দূর হয়ে যায়।

অনলাইন টিউশন হলো একটি অনলাইন টিউটরিং প্ল্যাটফর্ম। এটি ব্যবহার করে একজনের শিক্ষার্থী ঘরে বসেই তার প্রয়োজনীয় শিক্ষা নিতে পারে। এবং একজন শিক্ষক তাদের শেখানোর সুযোগ পায়। টিউটর এমন কেউ হতে হতে পারে যে, তাকে হয়তো কখনো দেখেছেন কিংবা এই অনলাইন টিউশনেই তার সাথে শুধুমাত্র পড়াশোনা করেছে।

অনলাইনে টিউশনি করাতে হলে আপনি যে কোন অনলাইন ক্লাসের ওয়েবসাইটে যোগ দিতে পারেন। কিংবা আপনার নিজস্ব একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।  বর্তমানে কিছু ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলো সবার কাছে প্রায় পরিচিত। 

এই ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে রয়েছে টেন মিনিট স্কুল অ্যাপ, শিখো অ্যাপ এছাড়া আরো বিভিন্ন ধরনের অ্যাপ রয়েছে। এরকম যেকোনো একটি অ্যাপের অধীনে আপনি কাজ করতে পারেন। কিংবা আপনার নিজের অ্যাপ তৈরি করতে পারবেন।

প্যাকেটিং এর কাজ

আমাদের দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন কাজে এই প্যাকেটের ব্যবহার করা হয়। কিন্তু আমরা এই প্যাকেটের দিকে খুব একটা নজর দিই না। এগুলোকে খুব সাধারণ চোখে দেখে। কিন্তু অনেকে এ প্যাকেটগুলো বিক্রি করে তাদের খরচ বহন করে। হ্যাঁ এটি সত্যি এভাবেও ঘরে বসে রোজগার করা যায়।

কোন একটি পণ্য গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য কিংবা পণ্য বহন করার জন্য যে মাধ্যম গ্রহণ করা হয় কি অর্থাৎ একটি প্যাকেট ব্যবহার করা হয়। আর এ প্যাকেটকে আকর্ষণ করে তোলার কাজকে বলা হয় প্যাকেটিং। যেমন ধরুন মিষ্টির বাক্স, বিরিয়ানির বাক্স, কলমের বাক্স, ডাইরির বাক্স। এগুলো ছাড়া আরো বিভিন্ন ধরনের প্যাকেট ব্যবহার করা হয়। 


আজকাল যে কোন দোকানে কাগজের প্যাকেট পাওয়া যায়। আপনারা চাইলে এগুলো কেউ তৈরি করতে পারেন ঘরে বসে। আপনি বিভিন্ন ধরনের গিফট বক্স তৈরি করতে পারেন। আজকাল প্রায় যে কোন বিশেষ অনুষ্ঠানে গিফট  বক্সের খুব চল রয়েছে। আপনি চাইলে আকর্ষণীয় বিভিন্ন ডিজাইনের গিফট বক্স তৈরি করতে পারেন। এগুলোকে বিভিন্ন দোকানে বিক্রি করে আপনি ঘরে বসে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ঘরে বসে মেয়েদের হাতের কাজ

মেয়েদের ঘরে বসে কাজ করার সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হল এই হাতে সেলাইয়ের কাজ। বেশিরভাগ মেয়েরাই হাতের সেলাইয়ের কাজ জানেন। তারা ঘরে বসে বিভিন্ন নকশি কাঁথা কিংবা জামাই নকশা করে থাকেন। আপনার এই দক্ষতাকে যদি কাজে লাগিয়ে যদি অর্থ উপার্জন করতে পারেন, তাহলে এটি আপনি নিজের খরচ চালানোর পাশাপাশি আপনার পরিবারের খরচও চালাতে পারবেন। এতে করে আপনি আপনার পরিবারে একটি অন্যতম সম্মানিত ব্যক্তি হয়ে উঠবেন। এছাড়া আপনি যদি নিজের টাকায় কোন কাজ কিংবা কোন জিনিস কিনতে পারেন তাহলে এই  আসলে অনেক খুশির ব্যাপার।

হাতের সেলাই এর বিভিন্ন কাজ রয়েছে। আপনি চাইলে নকশি কাঁথা সেলাই করতে পারেন, কিংবা জামাতে হাতের কাজ করতে পারেন। আবার বর্তমানে মেয়েরা ঘরে বসে সেলাই মেশিনের ও কাজ করে থাকে। মেয়েদের পোশাক ও ছেলেদের পোশাক ও সেলাই করে থাকে। আপনি চাইলে এভাবেও ইনকাম করতে পারবেন। আপনি হাতের কাজ করুন না কেন আর সেলাই মেশিনের এর কাজই করো না কেন ঘরে বসে থাকলে তো আর অর্থ উপার্জন হবে না। 

এর জন্য আপনাকে সবাইকে জানাতে হবে যে আপনি হাতের কাজ কিংবা সেলাই মেশিনের কাজ করেন। আপনি এটা জানানোর জন্য অনলাইনে ব্যবহার করতে পারবেন। অনলাইনে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন কিংবা ফেসবুকেও এসব পোনা বিক্রি করতে পারবেন। আবার আপনার বাড়ির আশেপাশে কোন ব্যানার কিংবা পোস্টার লাগিয়েও সবাইকে জানাতে পারবেন। এতে করে আপনার অর্থ পর্যন্ত ধীরে ধীরে আরো বাড়তে থাকবে।

অনলাইনে পণ্য বিক্রি

আজকাল অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের পণ বিক্রি হয়ে থাকে। এসব পণ্য বিক্রি করা পাশাপাশি সরাসরি বাড়িতে ডেলিভারি দেওয়া হয়। আর এসব অনলাইনে পণ্য বিক্রি দিন দিন বেড়ে চলেছে। আপনিও চাইলে অনলাইনে কোন বিক্রি করে রোজগার করতে পারবেন। আপনি ধরুন সেলাইয়ের কাজে খুব এক্সপার্ট আপনি চাইলে সেগুলো অনলাইনে বিক্রি করতে পারবেন। 

আবার কোন গহনা হাতে তৈরি করে সেগুলো করলে বিক্রি করতে পারবেন। আজকাল এ গহনা বিক্রির মান আরো বেড়ে চলেছে। আবার আপনি যদি রান্নার কাজে অনেক বেশি এক্সপার্ট হয়ে থাকেন তাহলে ফুড ডেলিভারিও করতে পারবেন।

এ তো আপনি অনেক ভাল অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এছাড়াও ঘর ডেকোরেশন এর বিভিন্ন জিনিস ঘরে তৈরি করে সেগুলোকে অনলাইনে বিক্রি করতে পারবেন।এর জন্য আপনি ফেসবুক ব্যবহার করতে পারেন। ফেসবুকের মাধ্যমে আপনি খুব সহজে এগুলোকে বিক্রি করতে পারবেন।

 আবার ইউটিউবে  ভিডিও করে আপনার পণ্য সম্পর্কে সবাই ধারণা পারবেন।আপনি এগুলো বিক্রিও করতে পারবেন আবার ফেসবুক এবং ইউটিউবে ভিউয়ার্স সংখ্যা বাড়ার জন্যও করতে পারবেন।

 নারীদের ব্লগিং করে আয়

ব্লগিং হলো এমন একটি কাজ যেখানে আপনাকে কোন নির্দিষ্ট বিষের ওপর লেখালেখি করতে হবে। যেমন আমরা যখন কোন কিছু জানার জন্য গুগল সার্চ ইঞ্জিনের সার্চ করি। তখন আমাদের সামনে নির্দিষ্ট কিছু উত্তর চলে আসে। এগুলো কিন্তু গুগল সাইট নিজে নিজেই করেনা। এই গুগল সাইটে বিভিন্ন মানুষ এসব কাজ করে। তাই আপনি চাইলেও ব্লগিং করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন

বর্তমানে মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেরা ঘরে বসে এর কাজ করে থাকে। অনলাইনে ইনকাম করার অন্যতম একটি মাধ্যম হলো এই ব্লগিং। নিয়মিত যেকোনো নির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর আপনি আর্টিকেল লিখতে করতে পারেন। ব্লগিং করতে হলে আপনি কোন ওয়েবসাইটের সাথে কাজ করতে পারেন কিংবা নিজস্ব একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখানে কাজ করতে পারেন।
পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url