জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক

জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক।জীবন মানে লক্ষ্য আর লক্ষ্য মানেই জীবন। মানুষের জীবন লক্ষ্য ছাড়া মূল্যহীন। আমরা প্রত্যেকে স্বপ্ন দেখতে অনেক পছন্দ করি। স্বপ্নে আমরা আমাদের মনমতো সবকিছু করতে পারে। এখানে স্বপ্ন অর্থাৎ কল্পনাকে বোঝানো হয়েছে। তবে কল্পনাতে আমার যা করতে পারে বাস্তবে কিন্তু তা করা খুব একটা সহজ ব্যাপার নয়। আমাদের কল্পনাকে বাস্তবিত করতে হলে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। আর কঠোর পরিশ্রম করে সফল হতে গেলে প্রয়োজন হবে লক্ষ্যের।
জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক

আমাদের প্রত্যেকের জীবনে একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হয়। যে লক্ষ্য অনুযায়ী আমরা পরিশ্রম করে যাই। লক্ষ্য সফলতার প্রথম ধাপ। কারণ আপনি কোন বিষয়ে জীবনের সফলতা আনতে চান সেটিকে আগে জানতে হবে এবং সে অনুযায়ী কাজ করতে হবে। আর এভাবে যদি আপনি করতে পারেন তাহলে অবশ্যই জীবনে একদিন সফল হতে পারবেন। তাহলে চলুন জেনে নেইজীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক।

জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক

তাই জীবনের সফল হতে গেলে একটি ভাল লোক ও নির্ধারণ করা অত্যন্ত জরুরী। আর আপনার জীবনে যদি কোন লক্ষ্য না থাকে তাহলে আপনি কি করবেন। প্রতিটা মানুষ তার লক্ষ্য পূরণের জন্যে প্রতিদিন পরিশ্রম করে যাচ্ছে কারো স্বপ্ন ধনী হওয়া, আবার কারো গরিবদের সাহায্য করা আবার কার মানুষের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠার স্বপ্ন।একেকজন মানুষের একেক ধরনের স্বপ্ন । 

আর যখন আমরা এই স্বপ্নগুলোকে বাস্তবায়িত করার জন্য পরিশ্রম করি তখন এগুলো হয়ে যায় লক্ষ্য । আর এ থেকে আমরা বুঝতে পারি অবশ্যই আমাদের জীবনের লক্ষ্যের গুরুত্ব রয়েছে। লক্ষ্য ছাড়া জীবন মূল্যহীন। আর সফলতার প্রথম ধাপ হলো লক্ষ্য।

জীবনের লক্ষ্য কিঃ

প্রিয় পাঠক আমরা আগের পর্ব জেনেছিজীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক। এই আমরা জানবো জীবনের লক্ষ্য কি।জীবনের মানেই হলো লক্ষ্য ।লক্ষ্য ছাড়া জীবন মূল্যহীন। প্রতিটা মানুষের জীবনেই একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্য রয়েছে। সেটা যে কোন কিছুই হোক না কেন। লক্ষ্য ছাড়া জীবনের কোন মানেই নেই। আপনার যদি লক্ষ্যই না থাকে তাহলে আপনার জীবনের কারণটা কি। আপনাকে তো সামনে এগিয়ে যেতে হবে। আপনি কেন সামনে এগিয়ে যাবেন কেন পরিশ্রম করবেন সেটা বিষয়ে তো আপনাকে জানতে হবে।

তাই জীবনে কিছু করার আগে সর্বপ্রথম একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। একই জনের একেক রকম লক্ষ্য হয়ে থাকে। সব লক্ষ্য কিন্তু একই ধরনের নয়। আপনারা যদি জীবনের সফল হতে চান তাহলে একটি ভালো লক্ষ্য তৈরি করতে হবে। যে লক্ষ্যে আপনি যদি কাজ করেন তাহলে, জীবনের সফল হতে পারবেন। তাই জীবনে এমন লক্ষ্য তৈরি করতে হবে যে লক্ষ্যের আপনার জীবনে সত্যিই মূল্য রয়েছে।

তাই মূল্যহীন লক্ষ্য তৈরি করে জীবনে সফল হওয়া যাবেনা। এমন একটি লক্ষ্য তৈরি করতে হবে যেটি সত্যি আপনার জীবনের জন্য প্রয়োজন। যেটি আপনাকে আপনার জীবনের সফল হতে সাহায্য করবে।শুধু লক্ষ্য তৈরি করলে হবে না, লক্ষ্য তৈরি করার পাশাপাশি সেই অনুযায়ী কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। আর এভাবে যদি আপনার লক্ষ্যের জন্য আপনি কঠোর পরিশ্রম করে যেতে থাকেন।

তাহলে অবশ্যই আপনি একদিন সফল হবেন। আপনারা দেখবেন যত সফল ব্যক্তি রয়েছে তাদের প্রত্যেকের জীবনে একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্য ছিল, আর সেই লক্ষ্য অনুযায়ী তারা কঠোর পরিশ্রম করে আজ সফল হতে পেরেছে। আমরা শুধু সফল ব্যক্তিদের সফলতাকে দেখতে পায়, কিন্তু তার সফল হওয়ার পেছনে যে কত কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে সেটিকে আমরা দেখতে পাই না।

কিন্তু একজন সফল ব্যক্তি হলে অবশ্যই কঠোর পরিশ্রম করতে হবে । আর এভাবেই একজন ব্যক্তি তার জীবনে সফল হয়ে থাকে। তাই জীবনে একটি ভালো লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। যে লক্ষ আপনাকে আপনার জীবনের সফল হওয়ার পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে। আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ তাদের জীবনের লক্ষ্য রয়েছে কিন্তু পরিশ্রম নেই। এমনটি করলেও হবে না। লক্ষ্য নির্ধারণের পাশাপাশি অবশ্যই পরিশ্রম করতে হবে। জীবনে সফলতা পেতে হলে, পরিশ্রমের কোন বিকল্প নেই।

কিভাবে জীবনের লক্ষ্য খুঁজবেনঃ জীবনের লক্ষ্য কি

জীবনের লক্ষ্য খুজে বের করতে হলে কিছু বিষয় সম্পর্কে জানতে হবে। আর আপনারা  যদি সেই বিষয়ে সম্পর্কে জানতে পারেন  তাহলে, খুব সহজেই নিজেদের লক্ষ্য কিভাবে খুঁজে বের করতে হবে সেটি সম্পর্কে জানতে পারবেন। আর আপনার জীবনের জন্য কোন লক্ষ্য টি সবচেয়ে বেশি ভালো হবে সেটি সম্পর্কেও জানতে পারবেন। তাহলে চলুন জেনে জীবনে লক্ষ্য খুঁজে বের করতে হলে কি করা প্রয়োজন।

যে কাজটি আপনাকে সুন্দর ভবিষ্যৎ দিতে পারবে

আমরা  লক্ষ্য নির্ধারণ করি মূলত জীবনের সফল হওয়ার জন্য। নিজেদের স্বপ্ন পূরণ করার জন্য। সুন্দর একটি ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার জন্য তাই আমাদের এমন একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে যেটি আমাদের সুন্দর ভবিষ্য দিতে পারবে এবং আমাদের স্বপ্নগুলো পূরণ করতে সাহায্য করবে।  এমন কোন লক্ষ্য নির্ধারণ করা যাবে না যে লক্ষ আমাদের সুন্দর ভবিষ্যৎ দিতে পারবেনা। 

তাই অবশ্যই লক্ষ্য নির্ধারণ করার আগে ভেবে চিন্তে নিতে হবে যে, এই লক্ষ্যটি সত্যিই কি আপনাকে আপনার জীবনে একজন সফল ব্যক্তি এবং আপনার স্বপ্নগুলো পূরণ করতে সাহায্য করবে। তাই যেই লক্ষ্য আপনাকে আপনার জীবনে একজন সফল ব্যক্তি, একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ এবং আপনার স্বপ্নগুলোকে পূরণ করতে সাহায্য করবে সেই লক্ষ্যকেই নির্ধারণ করতে হবে।

প্যাশন খুঁজে বের করা। জীবনের লক্ষ্য কি

প্যাশন, গোলটার্গেট এগুলো আমাদের প্রত্যেকের জীবনে থাকা প্রয়োজন। প্যাশন এমন একটি কাজ যে কাজটি করতে কখনো আমরা বোরিং অনুভব করি না। যে কাজটি করতে আমাদের ভালো লাগে। যে কাজটি ঘন্টার পর ঘন্টা করার ফলেও আমাদের বোরিং অনুভব হবে না। আমরা যদি একই কাজ প্রতিদিন আমাদের কোন ধরনের সমস্যা হবে না। 

এরকম অভ্যাস আমাদের সকলের রয়েছে যেমনঃ মোবাইল , গেম, ড্রয়িং, গল্প পড়া আরও বিভিন্ন ধরনের কাজ। যে কাজগুলো করলে আমাদের কোন ধরনের বোরিং অনুভব হয় না। আমরা আমরা যারা জীবনের লক্ষ্য খুঁজে বের করতে পারি না তাদের মনে হয় যে, তারা কিছু করতে পারে না। তাদের দ্বারা কিছু হবে না। 

এরকম ধারণা অনেকেরই রয়েছে। আর এই কিছু করার যোগ্যতাকে বলা হয় মূলত প্যাশন। কিন্তু সমস্যা হল যে, আপনি কিংবা অন্যান্য মানুষেরা এটাই বুঝতে পারেননি যে সেই জিনিসটা কি যার উপরে কাজ করার জন্য আপনার আগ্রহ রয়েছে। তাই জীবনের লক্ষ্য খুঁজে বের করতে হলে অবশ্যই আমাদের নিজেদের প্যাশন খুঁজে বের করতে হবে।

প্যাশন খুজে না পেলে যে বিষয়ে আপনি এখন কাজ করছেন সেটিতে মনোযোগ দেওয়া

আপনি যদি আপনার জীবনের প্যাশন এখনো পর্যন্ত না খুঁজে পান তাহলে, সময় নষ্ট না করে যে কাজটি বর্তমানে করছেন সেটি করতে হবে। যেমনঃ আপনি যদি একজন স্টুডেন্ট হয়ে থাকেন তাহলে নিজের সর্বত্র দিয়ে পড়াশোনা করুন, আবার আপনি যদি একজন বিজনেসম্যান হয়ে থাকেন তাহলে ভালোভাবে সে বিজনেসে মন দিন। 

আবার অনেক মানুষ এমন রয়েছে যারা সব কাজ ছেড়ে দেয় প্যাশন খোঁজার পিছনেই লেগে পড়েন। এমনটি করলেও কিন্তু হবে না। তাই প্যাশন খোঁজার পাশাপাশি, আপনাকে আপনার কাজও মনোযোগ দিতে হবে। আর আপনার কাজে যেতে মনযোগ না দিয়ে আপনি প্যাশন খুঁজতে বের হয়ে পড়েন তাহলে জীবনের অনেকটা সময় আপনি নষ্ট করে ফেলবেন। আর এই সময় নষ্ট করার ফলে জীবনের সফল হওয়ার হারও অনেক কমে যাবে। তাই প্যাশন খোদার পাশাপাশি নিজের কাজকে ১০০% দিয়ে করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণের গুরুত্ব।

আমরা প্রত্যেকে স্বপ্ন দেখতে ভালবাসি। কারন এই স্বপ্নগুলো আমাদের প্রশান্তি দিতে সাহায্য করে। কারণ কি আমরা যদি স্বপ্ন দেখি তাহলেই তো সামনের দিকে এগিয়ে নিতে পারব। পৃথিবীতে এমন কোন মানুষ নেই যে কখনো স্বপ্ন দেখেনা। পৃথিবীর সব মানুষেরই নিজেদের কিছু স্বপ্ন রয়েছে যে, সে বড় হয়ে কি করবে , তার কি করা উচিত, সে ওই কাজটি করলে কি কি অর্জন করতে পারবে ইত্যাদি আর বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে মানুষ স্বপ্ন দেখে। এই স্বপ্নগুলোই তাদের লক্ষ্য পূরণে শক্তি যোগায়।

একটা স্বপ্নের মাধ্যমে আপনি আগাম ভবিষ্যৎ দেখতে পারবেন। আপনি সেখানে দেখতে পারবেন যে, আপনার লক্ষ্য সম্পর্কে পরিশ্রমের পর আপনি সফলতা অর্জন করেছেন। স্বপ্নে তো সবই দেখা যায় তবে সেটিকে করা কিন্তু সহজ নয়। তাই স্বপ্ন দেখার পাশাপাশি অবশ্যই পরিশ্রম করতে হবে। এখন কথা হল আপনি কি বিষয়ে স্বপ্ন দেখবেন , সেটি কিন্তু অবশ্যই আগে জানতে হবে।

আপনার যে কাজটি করতে ভালো লাগে কিংবা যে কাজটিকে আপনি ভবিষ্যতে করতে চাচ্ছেন সেটিকে স্বপ্ন হিসেবে দেখতে হবে । যেমনঃ আপনি ভবিষ্যতে একজন ডাক্তার, পুলিশ অফিসার, পাইলট ইত্যাদি আরো বিভিন্ন পেশায় রয়েছে যেগুলো আপনি করতে চান। কিংবা আপনি নিজের কোন বিজনেস শুরু করতে চান।

জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণের উপায়

আপনি কি করতে চান। আপনি যদি লক্ষ্য স্থির করতে পারেন তাহলে আপনি স্বপ্ন দেখতে পারবেন যা আপনি ভবিষ্যতে কি কি করতে করছেন। আর এই ভবিষ্যতের স্বপ্নগুলো একদিন আপনাকে সফল হতে সাহায্য করবে। জীবনে সফল হতে গেলে অবশ্যই একটি ভাল লক্ষণ নির্ধারণ করতে হবে। আপনি যদি লক্ষ্য নির্ধারণ না করতে পারেন তাহলে আপনি বুঝবেন কিভাবে যে আপনি কেন পরিশ্রম করবেন।

পৃথিবীতে সব মানুষ সফল হয় না। কারণ সব মানুষ তার সঠিক লক্ষ্য নির্ধারণ করতে পারেনা। জীবনে সফলতার প্রথম ধাবই হলো লক্ষণ নির্ধারণ। তাই আমাদের জীবনে লক্ষ্য নির্ধারণের অবশ্যই গুরুত্ব রয়েছে। আপনাদের আশেপাশে যত সফল ব্যক্তি দেখবেন, তাদের যদি একটি প্রশ্ন করা হয় যে, সফল হতে গেলে প্রথমে কি করনীয় তাহলে তাদের উত্তরে আসবে প্রথমে একটি লক্ষ্য তৈরি করতে হবে।

কারণ লক্ষ্য ছাড়া কোন কিছুই করা সম্ভব নয়। আপনি কোন কাজটি ভালোভাবে করতে চাচ্ছেন, তারা অবশ্যই আপনাকে একটি প্ল্যান তৈরি করতে হবে। যে প্ল্যান অনুযায়ী কাজ করলে আপনার সময়ের মধ্যে সে কাজটি শেষ হয়ে যাবে এবং ভালোভাবে কাজটি শেষ হবে। এই প্ল্যানগুলো আমাদের জীবনের লক্ষ্য। লক্ষ্য যদি ভালোভাবে নির্ধারণ করতে পারেন তাহলে অবশ্যই সফল হওয়ার জন্য যা যা করণীয় সেগুলো করতে পারবেন এবং সেগুলো সময়ের মধ্যে।

জীবনের লক্ষ্য কি হওয়া উচিত

লোক জীবনে সফল হতে গেলে অবশ্যই লক্ষ্য নির্ধারণ করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তবে যে শুধু লক্ষ্য নির্ধারণ করেই জীবনের সফল হওয়া যায় তা কিন্তু নয়। আমরা প্রত্যেকে স্বপ্ন দেখে। আমাদের ইচ্ছা গুলোকে আমরা স্বপ্ন আকারে দেখে থাকি, আর এ স্বপ্নগুলোকে যখন আমরা বাস্তবায়িত করতে যাই তখন এগুলো হয়ে যায় আমাদের জীবনের লক্ষ্য। 

জীবনের সফল হতে গেলে অবশ্যই লক্ষ্য নির্ধারণ করার গুরুত্ব রয়েছে। তবে শুধু লক্ষ্য নির্ধারণ করে বসে থাকলে হবে না। আমাদের সেই লক্ষ্য অনুযায়ী কাজ করতে হবে। আর আমাদের দেশে লক্ষ্য অনুযায়ী সঠিকভাবে পরিশ্রম করতে পারি তাহলে অবশ্যই আমরা জীবনে সফল হতে পারব । লক্ষ্য হলো জীবনের সফল হওয়ার প্রথম ধাপ । 

সফলতার তো আরো অনেক ধাপ রয়েছে সেগুলো কেউ আমাদের করতে হবে। তাই শুধু লক্ষ্য নির্ধারণ করার মাধ্যমে জীবনের সফল হওয়া সম্ভব নয় । লক্ষ্য নির্ধারণের পাশাপাশি সেই অনুযায়ী আমাদের অক্লান্ত পরিশ্রম করতে হবে । তাই শুধুমাত্র লক্ষ লক্ষ নির্ধারণ করে জীবনের সফলতা অর্জন করা যাবে না । তবে জীবনের সফল হতে গেলে অবশ্যই লক্ষ্য নির্ধারণের গুরুত্ব রয়েছে ।

শেষ কথাঃজীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক

প্রিয় পাঠক আশা করছি আজকের আর্টিকেলটি আপনার জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক অনেক সহাওক হবে। আজকের আর্টিকেল যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। এবং আপনি আপনার বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে আজকের এই পর্বটি শেয়ার করবেন। আপনার একটি শেয়ারের মাধ্যমে আপনার বন্ধু-বান্ধব তারাও জানতে পারবে,জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে যোগ্যতাই একমাত্র বিবেচ্য বিষয় বিতর্ক।

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url