ছাগল পালন পদ্ধতি ২০২৪

প্রিয় পাঠক আপনি যদি ছাগল পালন পদ্ধতি ২০২৩ সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আজকের এই আর্টিক্যাল এর মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ছাগল  পালন পদ্ধতি ২০২৩ সম্পর্কে।বর্তমানে ছাগল পালন একটি লাভজনক ব্যবসা। কি করে ছাগল পালন করে মাসে লাখ টাকা ইনকাম করা যায়। এ সম্পর্কে জানতে হলে পোস্টটি সম্পন্ন পড়ুন।

এই পোস্টে আমরা জানবো ছাগলের খামার করার নিয়ম, ছাগলের খামার করতে কত টাকা লাগবে, ছাগল পালনে লাভ ক্ষতির হিসাব কোন জাতের ছাগল পালনে লাভ বেশি হয় এসব বিষয়। তাহলে দেরি না করে চলুন দেখে নেই কি করে ছাগল পালন করতে হয়।

ছাগলের খামার করার নিয়ম

প্রিয় পাঠক আপনি যদি জানতে চান ছাগলের খামার করার নিয়ম তাহলে আজকের এই পোস্টটি আপনার জন্য তাহলে চলুন দেরি না করে জেনে নেই ছাগল এর খাবার করার নিয়ম। ছাগল পালন করার জন্য সর্বপ্রথম আমাদের প্রয়োজন হবে একটি ঘর বা একটি ছাগলের খামার। 

একটি পূর্ণবয়স্ক ছাগলের জন্য গড়ে ১২ থেকে ১৪ বর্গফুট এবং বড় বাচ্চার জন্য ৪থেকে ৮বর্গফুট জায়গা প্রয়োজ্‌ন।ছাগলের খামার হতে হবে এমন, যা মাটি থেকে এক মিটার উচ্চতা থাকতে হবে এবং মেঝেটা কাঠের মাচান হলে সবচেয়ে ভালো হয়। কারণ মাচানের ওপর ছাগলছানা ভালোভাবে হাঁটা চলাফেরা করতে পারবে। 

এবং চারপাশ ফাঁকা জায়গা থাকতে হবে যাতে ছাগলের ঘরে বা ছাগলের খামারে পর্যাপ্ত পরিমাণ আলো-বাতাস ঢুকতে পারে। ছাগলের খামার করার জন্য এমন জায়গা চয়েস করতে হবে যেখানে বর্ষাকালে পানি জমে থাকবেনা।

ছাগলের খামার করতে কত টাকা লাগবে

প্রিয় পাঠক আপনি নিশ্চয়ই জানতে চাচ্ছেন ছাগলের খামার করতে কত টাকা লাগবে এ সম্পর্কে? তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক ছাগলের খামার করতে কত টাকা লাগে।একটি ছাগলের খামারের জন্য কত খরচ,হবে এটা নির্ভর করে আপনার উপরে, আপনি কিভাবে শুরু করবেন এটা উপর নির্ভর করবে আপনার পরিকল্পনার উপরে। 

ধরে নেই আমরা দশটা ছাগল দিয়ে খামার শুরু করব। তাহলে চলুন জেনে নেই দশটি ছাগল পালন করতে কিরকম খরচ হবে এ সম্পর্কে। নিচে দশটি ছাগল পালনের খরচের লিস্ট দেওয়া হলঃ

১ম খরচ

প্রতিটি ছাগল ৬থেকে ৭ হাজার টাকা করে লাগবে তাতে মোট ছাগলের দাম পড়বে, ৬0 থেকে ৭0 হাজার টাকা।
 ২য় খরচ 
ছাগলের খামার বাবত আপনার খরচ হবে 15 থেকে 20 হাজার টাকা। (খামার তৈরি করতে) এই যেমন ধরুন বাঁশ কাঠ লোক বল এসব আরকি।
৩য় খরচ
আপনাকে অল্প খরচ করে ছাগলের জন্য খাবার তৈরি করার জন্য সবচাইতে বুদ্ধিমানের কাজ হচ্ছে ছাগলের জন্য ঘাস চাষ করতে হবে, এর জন্য আপনাকে পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা খরচ করতে হবে। প্রথমে ঘাসের চারা সংগ্রহ করতে হবে, তারপর আপনাকে জমি চাষ করে সেই জমিতে ঘাসের চারা রোপন করতে হবে সেখান থেকে আপনি ছাগলের জন্য ঘাস পাবেন।
৪র্থ খরচ

খামারের পুরো এলাকা বাউন্ডারি দিতে হবে সেটার জন্য একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ খরচ করতে হবে ধরে নেওয়া যাক সেটার জন্য ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ হবে। যে জায়গা আপনি খামার করবেন তার চারিদিকে কোন কিছু বেরা বা বাঁশ দিয়ে ঘিরে দিতে হবে সেটার জন্য খরচ বাবদ ধরা হয়েছে 10 থেকে 12 হাজার টাকা।
৫ম খরচ

দশটি মেয়ে ছাগলের জন্য একটি পাঠা ছাগল দরকার।একটা ভালো পাঠা কিনতে হবে যার মূল্য ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা লাগবে।
৬ষষ্ঠ খরচ

 দশটি ছাগলের জন্য প্রতিদিন আমাকে এক থেকে দেড় হাজার টাকা খরচ করতে হবে। এই খরছ করতে হবে গাছের ডাল পাতা, ভাতের মার, ভুসি এসবের জন্য।
শেষ খরচ

আর সর্বশেষ খরচ হচ্ছে আপনার চিকিৎসার খরচ, আপনার খামারের যেসব ছাগল থাকবে  তাদের চিকিৎসার জন্য প্রতি মাসে একটা নির্দিষ্ট পরিমান খরচ করতে হবে। ধরে নিন মোট ৫000 টাকা।
খামার তৈরি করা থেকে শুরু করে মোট দশটি ছাগল ও একটি পাঠা সহ মোট খরচ হচ্ছে আমাদের ১,২্‌০,০০০ হাজার টাকা।

ছাগল পালনে লাভ ক্ষতির হিসাব

১0 টি ছাগলের দাম ৬0 হাজার টাকা, প্রতিদিন ১টি  ছাগলের পিছনে খরচ ১৫ টাকা করে তাহলে মোট দশটি মেয়ে ছাগলের পিছনে খরচ ১৫০ টাকা। মাসে ৪৫০০ টাকা খরচ। ১৫ মাসের খরচ হবে মোট ৬৭ হাজার ৫00 টাকা।ছাগলের দাম৬০০০০+৬৭৫০০=১২৭৫০০, (ছাগলের দাম + খাবার খরচ) এতক্ষণ আমরা দেখলাম খরচের হিসাব। এখন দেখব এই ১৫ মাস পরে ছাগল আমাদের কি ফিডব্যাক দিল।
একটি পরিপূর্ণ ছাগল মাতা+ একটি ছাগল ছানা= মা সহ ২টি ছাগল ছানা
                               ১২০০০+২৫০০=১৪৫০০
একটি ছাগল ছানার পিছনে আমি পেলাম ১৪৫০০ তাহলে দশটি ছাগলছানা পিছনে দাম আসতেছে এক লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা, আমার খরচ হয়েছিল ১২৭৫০০আমি পেলাম এক লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা তাহলে আমার আয় দাঁড়ালো ১৭৫০০ টাকা।

কোন জাতের ছাগল পালনে লাভ বেশি

কোন জাতের ছাগল বেশি ভালো একথা আসলে সর্বপ্রথম চলে আসে ব্লাক বেঙ্গল ছাগলের কথা। ছাগল পালনে বাংলাদেশ বিশ্বের চতুর্থ  স্থানে অবস্থান করেছে।ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগলের চামড়া কুষ্টিয়া গ্রেড হিসেবে পরিচিত। এমন কোন বাড়ী নেই যে বাড়িতে ব্লাক বেঙ্গল ছাগল নেই। 

এই ছাগল পালনে তেমন কোন খরচ নেই এই ছাগলের রোগবালাই কম বছরে কমপক্ষে দুই থেকে তিনটি বাচ্চা প্রসব করে আট থেকে নয় মাস পর পর বাচ্চা দেয় সবমিলিয়ে ছাগল লালন পালন করা লাভজনক। তাই আপনারা যদি কেউ ছাগল পালন করতে চান তাহলে অবশ্যই ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল পালন করবে।

ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল চেনার উপায়

প্রিয় পাঠক আপনি নিশ্চয়ই জানতে চাচ্ছেন ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল চেনার উপায় কি? তাহলে চলুন দেরি না করে ব্লাক বেঙ্গল ছাগল চেনার উপায় জেনে নেই।ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল বাংলাদেশের কালো ছাগল বলে পরিচিত, বাংলাদেশ এবং ভারতের কিছু রাজ্যে বসবাসরত ছাগলের একটি প্রজাতি। বাচ্চা উৎপাদনের ক্ষেত্রে ছাগলটির অন্য জাতের ছাগলের তুলনায় বেশি বাচ্চা প্রসব করে, বিশ্ববাজারে এর চামড়া এবং মাংস খুবই গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। 

এ ছাগল চেনার উপায় এরা মোটামুটি কালো রঙের হয়ে থাকে। এদের আকার খাটো এবং নরম ও মসৃণ এবং পা খাটো হয়ে থাকে এদের কান১১ থেকে ১৪ সেন্টিমিটার এর মধ্যে হয়, এবং সামনের দিকে সূচালো থাকে।

কোন জাতের ছাগল বেশি দুধ দেয়

প্রিয় পাঠক আপনি জানতে চাচ্ছেন কোন জাতের ছাগল বেশি দুধ দেয়। তাহলে এই পোস্টটি আপনার জন্য। দেরি না করে মনোযোগ সহকারে পড়ুন তাহলে জানতে পারবেন কোন জাতের ছাগল বেশি দুধ দেয়। ছাগলের বহু রকমের জাত আছে তার মধ্যে সবচাইতে দুধ এবং মাংসের জন্য বিটল প্রজাতির  ছাগল ভালো। বিটল প্রজাতির ছাগল বেশি দুধ দেয় এবং মাংসের পরিমাণও অনেক বেশি। 

তাই এর বাজারে মূল্য চড়া। এ কারণে পশু পালনকারীদের কাছে ধীরে ধীরে খুব জনপ্রিয় উঠেছে এই বিটল প্রজাতির ছাগল।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক এতক্ষণ আপনি নিশ্চয়ই জেনে গেছেন ছাগলের খামার করার নিয়ম, ছাগলের খামার করতে কত টাকা লাগব, এবং ছাগল পালনে লাভ ক্ষতির হিসাব এই পোস্টটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মতামত থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাবেন আর আপনার বন্ধু বান্ধবের মধ্যে পোস্টটি শেয়ার করে দেবেন।
পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url