ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায় বিস্তারিত জেনে নিন

প্রিয় পাঠক আপনি যদি ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায় সম্পর্কে জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব কিভাবে ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করা যায় সেই সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত।

ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায়
ফুসফুসে ইনফেকশন থাকলে নানা ধরনের অসুবিধা বা রোগ হতে পারে। তাই ফুসফুসে ইনফেকশন থাকলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ইনফেকশন প্রতিরোধ করতে হবে। চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত।

ফুসফুস ভালো আছে বোঝার উপায়

আপনি যদি ফুসফুস ভালো আছে বোঝার উপায় সম্পর্কে জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে চলুন জেনে নেওয়া যাক ফুসফুস ভালো আছে বোঝার উপায়। একটি সাধারণ শ্বাস পরীক্ষার মাধ্যমে বোঝা যাবে আপনার ফুসফুস ভালো আছে কিনা। 

এই জন্য নিঃশ্বাস আটকে রেখে ফুসফুসের ব্যায়াম করার মাধ্যমে এর লক্ষণ বোঝা যায়। যদি এই ব্যায়ামটি করার সময় রোগী দীর্ঘসময় শ্বাস আটকে রাখতে পারেন তাহলে বোঝা যাবে তার ফুসফুসে কোন সমস্যা নেই। আর যদি আপনি দীর্ঘ সময় এই ব্যায়ামটি করতে না পারেন তাহলে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক ব্যায়ামটি কিভাবে করতে হয়ঃ
  1. সোজা হয়ে বসুন এবং আপনার দুই হাত দুই থাইয়ের উপরে সমান্তরাল ভাবে রাখুন।
  2. এবার এ অবস্থায় মুখ খুলে যতটা সম্ভব বাতাস টেনে নিন।
  3. এবার ঠোঁট চেপে ধরে রাখুন
  4. যতক্ষণ সম্ভব ততক্ষণ শ্বাস শরীরের মধ্যে ধরে রাখার চেষ্টা করুন
  5. আপনি যদি কমপক্ষে ২৫ সেকেন্ড আটকে রাখতে পারেন তাহলে আপনার ফুসফুসে কোন সমস্যা নেই বলে গণ্য করা হবে।

ফুসফুসের সমস্যা দূর করার উপায়

ফুসফুসের সমস্যা দূর করার উপায় সম্পর্কে জানতে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফুসফুসের সমস্যা দূর করার উপায়। চিকিৎসকের দেওয়া টেস্ট অনুযায়ী যদি আপনার ফুসফুসে ইনফেকশন ধরা পড়ে থাকে তবে ফুসফুস ইনফেকশনের ধরন অনুযায়ী আপনাকে ঔষধ গ্রহণ করতে হবে। 

 এক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত ঔষধ সেবন করুন। ব্যাকটেরিয়া ইনফেকশনের জন্য সাধারণত এন্টিবায়োটিক জাতীয় ঔষধ প্রদান করা হয়। কিন্তু ভাইরাস ঘটিত ইনফেকশনের বিরুদ্ধে এন্টিবায়োটিক কোন কাজ করে না যার ফলে শরীরকে নিজস্ব এন্টিবায়োটিক তৈরি করে নিতে হয়। যার ফলে এর চিকিৎসা অনেক দীর্ঘায়িত হয়।

এবং যদি ছত্রাকের কারণে ইনফেকশন হয়ে থাকে তবে ছত্রাক বিরোধী বিভিন্ন রকম ঔষধ যেমন কিটোকোনাজল বা ভরি কনা জল জাতীয় ঔষধব গ্রহণ করতে পারেন। ঔষধের পাশাপাশি বিভিন্ন রকমের পুষ্টিকর খাবার এর মাধ্যমে ইনফেকশন থেকে দ্রুত মুক্তি লাভ করা যায়। যে খাবারগুলো আপনার শরীরের ইমিউনিটি সিস্টেমকে বাড়িয়ে দিয়ে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে। 

যে সমস্ত খাবারগুলো ফুসফুসের ইনফেকশন থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করবে এগুলো হলো-প্রচুর পরিমাণে পানি,আদা,মধু,লবণ পানি দিয়ে কুলকুচি করার মাধ্যমে এ ধরনের রোগ থেকে দ্রুত উপশম পাওয়া সম্ভব। তবে মনে রাখবেন এন্টিবায়োটিকের শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনোভাবেই ঔষধ বন্ধ করা যাবে না।

ফুসফুসে ইনফেকশন এর লক্ষণ

আপনি যদি ফুসফুসে ইনফেকশন এর লক্ষণ জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফুসফুসে ইনফেকশন এর লক্ষণ কি। ফুসফুসের ইনফেকশনের লক্ষণ নিচে দেওয়া হলঃ
  1. শ্বাসকষ্ট
  2. কাশি কিংবা শ্বাস নেওয়ার সময় বুকে প্রচণ্ড ব্যথা
  3. কাশির সঙ্গে গলা দিয়ে হুইসিং এর মত শব্দ বের হওয়া
  4. মানসিক অসচেতনতা
  5. বিভ্রান্তি
  6. কাশির সঙ্গে কফ যাওয়া
  7. জ্বর
  8. কাঁপুনি দিয়ে জ্বর বা জ্বরের সঙ্গে ঘাম
  9. শরীরের তাপমাত্রা কমে যাওয়া
  10. গলা ব্যথা, মাথাব্যথা
  11. খাবারে অরুচি
  12. বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া
  13. ডায়রিয়া
  14. জয়েন্টে ব্যথা
  15. কাশির সাথে কখনো কখনো রক্ত যাওয়া
  16. ঠোঁট ও হাত-পায়ের আঙ্গুলের মাথার অংশ নীলবর্ণ হয়ে যাওয়া
  17. হাত ও পায়ের আঙ্গুলের নখ উল্টানো চামচের মতো হয়ে যাওয়া।
উপরোক্ত এক বা একাধিক লক্ষণ দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। এবং চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে উপযুক্ত চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে।

ফুসফুসের পরীক্ষার নাম

আপনি নিশ্চয়ই ফুসফুসের পরীক্ষার নাম জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফুসফুসের পরীক্ষার নাম। ফুসফুসের যে কোন ধরনের সমস্যা হলে যত দ্রুত সম্ভব একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এর কাছে যেতে হবে। এরপর চিকিৎসক আপনার বিভিন্ন রকমের টেস্ট নেওয়ার আগে আপনাকে কিছু প্রশ্ন করবেন।


আপনার বর্তমান অবস্থা, আপনি কোথায় চাকরি করেন বা কোন পেশায় নিয়োজিত আছেন, আপনি কাদের সঙ্গে ওঠাবসা করেন, আপনার বন্ধুবান্ধব এবং আপনার বন্ধুবান্ধব কোন পেশায় নিয়োজিত আছে বা কোন এলাকায় বসবাস করে, আপনি কোন এলাকায় বসবাস করেন, আপনার সর্বশেষ ভ্রমণ কিংবা আপনি কোন পানির স্পর্শে এসেছিলেন কিনা এ বিষয়ে চিকিৎসক বিস্তারিত জানার পরে আপনার টেস্টগুলো দিবে। এক্ষেত্রে একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসক আপনাকে যে ধরনের পরীক্ষা নিরীক্ষা দিয়ে থাকবে এগুলো হলো-
  1. বুকের এক্সরে
  2. সিটি স্ক্যান
  3. স্পাইরোমেট্রি টেস্ট
  4. পাল্স অক্সিমেট্রি
  5. কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট
  6. ব্লাড কালচার। ইত্যাদি

ফুসফুসের ক্যান্সারের লক্ষণ

ফুসফুসের ক্যান্সারের লক্ষণ গুলো জানতে হলে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যায় ফুসফুসের ক্যান্সারের লক্ষণ।
  • অতিরিক্ত কাশি
  • কাশির সঙ্গে কফ বা রক্ত যাওয়া
  • কাশি বা নিঃশ্বাস নেওয়ার সময় বুকে তীব্র ব্যথা
  • শ্বাসকষ্ট
  • নিঃশ্বাস নেওয়ার সময় গলার মধ্যে থেকে হুইজিং এর মত শব্দ
  • দুর্বলতা ও ক্লান্তিবোধ
  • খাবারে অরুচি
  • জ্বর
  • কাঁপুনি দিয়ে জ্বর বা জ্বরের সঙ্গে ঘাম
  • শরীরের তাপমাত্রা কমে যাওয়া
  • গলা ব্যথা, মাথাব্যথা

ফুসফুসের কাজ করার ক্ষমতা কমে গেলে কি  সমস্যা হতে পারে

ফুসফুসের কাজ করার ক্ষমতা কমে গেলে কি কি সমস্যা হতে পারে এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নিন। ফুসফুস আমাদের শ্বসনের সমস্ত প্রক্রিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করে। ফুসফুসের মাধ্যমেই অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত সারা শরীরে পৌঁছে যায়। 

ফুসফুসের সংক্রমণ হলে শ্বাসকষ্ট দেখা দেয় যার ফলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার অন্যতম অঙ্গ হল ফুসফুস তাই ফুসফুস কে সুস্থ রাখা জরুরি।আমাদের শরীরের পুরো সিস্টেমকে কাজ করতে ফুসফুস বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

এক্ষেত্রে যদি ফুসফুসের কাজ করার ক্ষমতা কমে যায় তাহলে শরীরের প্রত্যেক কোষে রক্ত সংবহন কমে যাবে। যার ফলে শরীরের নানা রকম সমস্যা দেখা দেবে এবং নানারকম রোগ সৃষ্টি হবে। ফুসফুসের কাজ করার ক্ষমতা কমে গেলে যে ধরনের সমস্যাগুলো দেখা দিতে পারে এগুলো নিম্নরুপ-
  • শ্বাসকষ্ট
  • কাশি কিংবা শ্বাস নেওয়ার সময় বুকে প্রচণ্ড ব্যথা
  • কাশির সঙ্গে গলা দিয়ে হুইসিং এর মত শব্দ বের হওয়া
  • মানসিক অসচেতনতা
  • বিভ্রান্তি
  • কাশির সঙ্গে কফ যাওয়া
  • জ্বর
  • কাঁপুনি দিয়ে জ্বর বা জ্বরের সঙ্গে ঘাম
  • শরীরের তাপমাত্রা কমে যাওয়া
  • গলা ব্যথা, মাথাব্যথ
  • খাবারে অরুচি
  • বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া
  • ডায়রিয়া
  • জয়েন্টে ব্যথা
  • কাশির সাথে কখনো কখনো রক্ত যাওয়া
  • ঠোঁট ও হাত-পায়ের আঙ্গুলের মাথার অংশ নীলবর্ণ হয়ে যাওয়া

ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায়

ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায় জানতে হলে এই পর্বটির মনোযোগ সহকারে পড়ুন। চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায়।চিকিৎসকের দেওয়া টেস্ট অনুযায়ী যদি আপনার ফুসফুসে ইনফেকশন ধরা পড়ে থাকে তবে ফুসফুস ইনফেকশনের ধরন অনুযায়ী আপনাকে ঔষধ গ্রহণ করতে হবে। এক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত ঔষধ সেবন করুন।

ব্যাকটেরিয়া ইনফেকশনের জন্য সাধারণত এন্টিবায়োটিক জাতীয় ঔষধ প্রদান করা হয়। কিন্তু ভাইরাস ঘটিত ইনফেকশনের বিরুদ্ধে এন্টিবায়োটিক কোন কাজ করে না যার ফলে শরীরকে নিজস্ব এন্টিবায়োটিক তৈরি করে নিতে হয়। 

যার ফলে এর চিকিৎসা অনেক দীর্ঘায়িত হয়। এবং যদি ছত্রাকের কারণে ইনফেকশন হয়ে থাকে তবে ছত্রাক বিরোধী বিভিন্ন রকম ঔষধ যেমন কিটোকোনাজল বা ভরি কনা জল জাতীয় ঔষধব গ্রহণ করতে পারেন।

ঔষধের পাশাপাশি বিভিন্ন রকমের পুষ্টিকর খাবার এর মাধ্যমে ইনফেকশন থেকে দ্রুত মুক্তি লাভ করা যায়। যে খাবারগুলো আপনার শরীরের ইমিউনিটি সিস্টেমকে বাড়িয়ে দিয়ে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে। 

যে সমস্ত খাবারগুলো ফুসফুসের ইনফেকশন থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করবে এগুলো হলো-প্রচুর পরিমাণে পানি,আদা,মধু,লবণ পানি দিয়ে কুলকুচি করার মাধ্যমে এ ধরনের রোগ থেকে দ্রুত উপশম পাওয়া সম্ভব। তবে মনে রাখবেন এন্টিবায়োটিকের শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনোভাবেই ঔষধ বন্ধ করা যাবে না।

ফুসফুসের সমস্যা ও সমাধান

আপনি নিশ্চয়ই ফুসফুসের সমস্যা ও সমাধান সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। চলুন এই পর্বে ফুসফুসের সমস্যা ও সমাধান জেনে নেওয়া যাক। ফুসফুসের ইনফেকশন হলে এর প্রতিরোধ করা সম্ভব নয় তবে বেশ কিছু নিয়ম মেনে চললে এর থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যায়। কিছুটা সতর্ক হলে এর ঝুঁকি থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব। 

এ ধরনের রোগ মূলত পরিবেশ ও ব্যক্তিগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার ওপর অনেকাংশে নির্ভর করে। বিশেষ করে দূষিত ধূলিকণার মাধ্যমে এরূপ ছড়িয়ে থাকে। এ ধরনের রোগ থেকে মুক্তির জন্য যে সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারি এগুলো হল-
  1. ঘরের বাহিরে মাক্স ব্যবহার করুন
  2. নিয়মিত হাত পরিষ্কার করুন
  3. ময়লা হাতে মুখ ও নাকে খোঁচানো থেকে বিরত থাকুন
  4. অন্যদের সাথে খাবারের পাত্র, খাবার বা পানীয় শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন
  5. জনবহুল এলাকা এড়িয়ে চলুন
  6. ধূমপান থেকে বিরত থাকুন
  7. ইনফেকশন প্রতিরোধে ভ্যাকসিন গ্রহণ করুন

শেষ কথা

উপরোক্ত আলোচনা সাপেক্ষে এতক্ষণে নিশ্চয়ই ফুসফুসের ইনফেকশন দূর করার উপায় সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আপনার যদি এই পর্বটি সম্পর্কে কোন মতামত থেকে থাকে তবে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন এবং আজকের পর্বটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তবে অবশ্যই বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করবেন।
পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url