ত্বকের যত্নে চন্দনের ব্যবহার

প্রিয় পাঠক আপনারা সকলে জানেন প্রাচীন কাল থেকে ত্বকের জন্য ব্যবহার হয়ে আসছে এই চন্দন। আজকে আমরা চন্দন সম্পর্কে বিস্তারিত বিষয় জেনে নিব। চন্দনের তৈরি বিভিন্ন ধরনের ফেসপ্যাক ত্বকের বিভিন্ন উপকারে আসে তারই ধারাবাহিকতায় আজকে আমরা ত্বকের যত্নে চন্দনের ব্যবহার জানবো।


দেরি না করে জেনে নেই চন্দনের ব্যবহার, জানতে হলে পুরো 
পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। কেননা এরপর আমরা আলোচনা করব চন্দন মুখে দিলে কি হয় চন্দনের ব্যবহার এর বিস্তারিত আলোচনা। আশা করছি আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের অনেক উপকারে লাগবে।

ত্বকের যত্নে চন্দনের  ব্যবহারঃ

প্রাচীনকাল থেকে ত্বকের পরিচর্যা ব্যবহার হয়ে আসছে চন্দনের। চন্দন ত্বকের যত্নে অনেক উপকারী। কারণ চন্দনে রয়েছে আন্টি ব্যাকটেরিয়াল জাতীয় উপাদান।যা বিভিন্ন ধরনের সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। প্রাচীনকাল থেকে আজ পর্যন্ত ব্যবহার হয়ে আসছে এই চন্দনের। বর্তমানেও চন্দনের অনেক জনপ্রিয়তা রয়েছে। 

এই চন্দন ব্যবহারে অনেকেই উপকার পেয়েছে। আর এ চন্দন যদি ত্বকে ব্যবহার করা যায়, তাহলে কোন ধরনের  ফেসিয়াল এর প্রয়োজন পড়বে না।চন্দন ত্বকে বিভিন্ন রকম ভাবে ব্যবহার করা যায়। একেক ধরনের চন্দন একেক ভাবে ব্যবহার করা যায় চন্দন সাধারণত তিন ধরনের হয় এক  হল শ্বেত চন্দন, দুই লাল চন্দন, তিন পিত চন্দন। 

এই চন্দন গুলোর মধ্যে শ্বেত চন্দন বেশি ব্যবহৃত হয়। আর এই চন্দন দিয়ে মানুষেরা তাদের রূপচর্চা করে। বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন ধরনের চন্দনের প্রোডাক্ট বিক্রি করা হয়। তার মধ্যে চন্দনের পাউডার এবং চন্দনের ক্রিম বেশি জনপ্রিয়।  কারণ এগুলো মানুষেরা বেশি ব্যবহার করে থাকে।

 চন্দন মুখে দিলে কি হয়ঃ

আমাদের শরীরের মতো আমাদের মুখেও এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া থাকে। যে ব্যাকটেরিয়া গুলো আমাদের ত্বকের ক্ষতি সাধন করে। এছাড়া ত্বক ময়লা থাকলেও ত্বকে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা যায়। কিন্তু এর চন্দন আমাদের ত্বক ভেতর থেকে পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। 

এছাড়াও চন্দনে রয়েছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান। যেগুলো আমাদের ত্বকের খারাপ ব্যাকটেরিয়া গুলোকে ধ্বংস করতে সাহায্য করে। যার ফলে আমাদের ত্বকের বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সমাধান খুব সহজে হয়ে যায়। ত্বকের বিভিন্ন ধরনের সমস্যার মধ্যে রয়েছে, তার মধ্যে রয়েছে বলিরেখা, ব্রণের সমস্যা যা চন্দন দূর করতে সাহায্য করে। 

এর পাশাপাশি চন্দন ত্বকের উজ্জ্বলতা আরও বৃদ্ধি করতেও সাহায্য করে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্যই ,মূলত মানুষ চন্দন ব্যবহার করে। কারণ অন্যান্য দামি প্রোডাক্টসের চেয়ে চন্দন খুব কম সময়ে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে। তাইতো চন্দন দিয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট তৈরি করা হয়। আর এগুলো বাজারে অনেক বিক্রিও হয়।

চন্দন কেন ত্বকের জন্য ভালোঃ

আমাদের ত্বকের জন্য অনেক উপকারী কারণ, চন্দনে রয়েছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান। এই অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল গুলো আমাদের ত্বকের ফ্রি রেটিক্যালস গুলো দূর করতে সাহায্য করে। আমাদের ত্বকে দুই ধরনের ব্যাকটেরিয়া থাকে, এক হল খারাপ ব্যাকটেরিয়া এবং দুই হল ভালো ব্যাকটেরিয়া।

 ভালো ব্যাকটেরিয়া গুলো আমাদের ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে এবং খারাপ ব্যাকটেরিয়া গুলো আমাদের ত্বকের ক্ষতিসাধন করে থাকে।আর যখন আমাদের ত্বক অনেক ময়লা থাকে তখন এই খারাপ ব্যাকটেরিয়া গুলো আমাদের ত্বকের উপর বেশি করে প্রভাব ফেলতে থাকে। 

এর ফলে আমাদের ত্বকে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা যায়। আর চন্দন আমাদের ত্বকের খারাপ ব্যাকটেরিয়া গুলোকে দূর করতে সাহায্য করে। ফলে আমাদের ত্বকের সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। চন্দন শুধু ত্বকের খারাপ ব্যাকটেরাগুলো দূর করে তা কিন্তু নয়। বরং চন্দন আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা আরও বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এ কারণে চন্দন আমাদের ত্বকের জন্য অনেক উপকারি।

চন্দন সাবান ব্যবহারের নিয়মঃ

চন্দন মানুষের কাছে এতটাই জনপ্রিয় হয়ে যাচ্ছে যে, চন্দন দিয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট তৈরি করা হচ্ছে। এর মধ্যে অন্যতম একটি হলো সাবান। বর্তমানে চন্দন দিয়ে তৈরি সাবানও অনেক  ব্যবহার হচ্ছে। চন্দন মানেই অনেকে মনে করে এর দাম অনেক বেশি। 

কিন্তু একদমই না, কম দামের মধ্যে একটি ভালো প্রোডাক্ট হলো সাবান। খুব সহজে গলে যায় না। আপনারা চাইলে দুই মাস পর্যন্ত এদিকে ব্যবহার করতে পারবেন। এই সাবান মূলত শুধু ফেসে অর্থাৎ মুখে ব্যবহার করা হয়। আপনারা চাইলে আপনাদের গলা কিংবা হাতে ব্যবহার করতে পারবেন।

এই সাবান চাইলে গোসলের সময় ব্যবহার করা যেতে পারে। আবার চাইলে সকালে ঘুম থেকে উঠে মুখে ব্যবহার করা যেতে পারে। এই সাবানটি ব্যবহার করলে তোকে এক ধরনের ন্যাচারাল গ্লো করবে। এছাড়াও ত্বকে যদি কোন ব্রণের সমস্যা থাকে তাহলে এটিও দূর করতে সাহায্য করে। এই সাবানের সাইজ অনুযায়ী এর দাম হয়ে থাকে।

চন্দন পাউডার ব্যবহারের নিয়মঃ

সাবানের মতোই আরেকটি প্রোডাক্ট হলো চন্দনের পাউডার।  বাজারে চন্দনের পাউডারেরও ও অনেক চাহিদা রয়েছে। এই চন্দনের পাউডার বিভিন্নভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। বিভিন্ন জিনিসের সাথে মিক্স করে এ চন্দনের পাউডার ব্যবহার করা হয়। 

আবার অনেকে শুধুমাত্র পানির সাথে মিক্স করে ত্বকে ব্যবহার করে। আমার মতে আপনারা যদি রাতে ঘুমানোর আগে এর চন্দন তাকে ব্যবহার করেন তাহলে এর ভালো একটি উপকার আপনার পেয়ে যাবেন খুব কম সময়ের মধ্যে। এ আরো কিছু ব্যবহার রয়েছে তাহলে চলুন সেগুলো জেনে নিই।

  • চন্দনের ফেসপ্যাক বানাতে হলে প্রথমে প্রয়োজন চন্দনের পাউডার, এরপর সেখানে মুলতানি মাটি ব্যবহার করতে হবে এক চামচ এবং এক চামচ গোলাপ জল। এরপর এগুলোকে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। এভাবে মিশিয়ে নেওয়ার পর মুখে ব্যবহার করতে হবে। এটি আপনার ত্বকের ব্রণের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করবে এবং তাদের উজ্জ্বলতা আরো বাড়িয়ে দিতেও সাহায্য করবে।
  • তৈরি করতে প্রয়োজন বেসনের, এক চামচ বেসন নিয়ে সেখানে আরো এক চামচ চন্দন পাউডার ব্যবহার করতে হবে। এরপর হাফ চামচ হলুদের গুঁড়ো ব্যবহার করে, গোলাপজল দিতে হবে এক চামচ। এরপর এগুলোকে ভালো করে মিক্স করে ত্বকে ব্যবহার করতে হবে। শুকিয়ে গেলে ভালো করে ফেসওয়াশ দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

চন্দন পাউডারের দাম কতঃ

বাজারে দুই ধরনের চন্দন পাউডার কিনতে পাওয়া যায়। এক হল চন্দনের কাঠের পাউডার এবং চন্দনের ফেস পাউডার। এ দুটি ত্বকের জন্য অনেক উপকারী। চন্দনের ফেস ব্যবহার করলে, এটি ত্বকে মেকাপ পাউডারের মতো গ্লো দিবে এবং সূর্য থেকেও ত্বকের রক্ষা করবে। শুরু থেকে রক্ষা করার পাশাপাশি ত্বকের উজ্জ্বলতা আর বাড়ি তোলে। আর এটিকে আপনারা সব সময় ব্যবহার করতে পারবেন। তাহলে চলুন জেনে নেই এই দুইটি পাউডারের দাম।

লন্ডস কোম্পানির চন্দনের দাম, চন্দন ফেস পাউডারটি সাধারণত ১৪০ থেকে ১৫০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাবে। আর চন্দনের গুঁড়ো অর্থাৎ কাঠের গুঁড়ো ২০০ টাকার মধ্যে কিনতে পাওয়া যাবে। অনেকদিন পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন।

চন্দন ক্রিমের দাম কতঃ

চন্দনের পাউডারের পাশাপাশি বাজারে চন্দনের বিভিন্ন ধরনের ক্রিম কিনতে পাওয়া যায়। এগুলোকে ব্যবহার করেও অনেকে এর উপকারিতা গুলো পেয়েছে।

বার্মিজ চন্দন ক্রিম দাম ২৫০ টাকা ।মমতাজ মাসাজ১০০ গ্রামের চন্দন ক্রিম দাম ৫০ টাকা।মর্ডান চন্দন গোল্ড ফেসওয়াশ ১০০ গ্রামের দাম ৩০০ টাকা.

চন্দনের উপকারিতা

চন্দন একটি সুগন্ধি গাছের নাম এটি ভারতের সবচাইতে বেশি পাওয়া যায়। এছাড়াও দক্ষিণ এশিয়া ইন্দোনেশিয়া ও অস্ট্রেলিয়া সহ অন্যান্য দেশেও এই সুগন্ধি গাছ পাওয়া যায়। চন্দনের আছে হাজারো ওষুধি গুণাগুণ। রূপচর্চার জন্য চন্দনের খ্যাতি যুগ যুগ ধরে, প্রাচীনকালের রূপচর্চার অন্যতম একটি উপাদান ছিল চন্দন। 

বর্তমান সময়ে বিভিন্ন রকম কসমেটিকস ও সুগন্ধিতে চন্দন ব্যবহৃত হয়।ত্বকের বিভিন্ন সমস্যায় চন্দন বেশ উপকারী। এতে আছে এন্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান যা ব্রণ ও ত্বকের অন্যান্য সমস্যা কমাতে সাহায্য করে। চলুন জেনে নেই চন্দনের কিছু অসাধারণ গুণাবলী ও ব্যবহার।

চন্দন বলিরেখা দূর করে, চন্দনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান সমূহের সমন্বয়ে গঠিত যা আপনার মুখের রক্ত সঞ্চালন বাড়ায় এর বিরোধী প্রদাহ জমক এজেন্ট আছে যা বলি রাখা দূর করতে সাহায্য করে।


পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url