অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা - অ্যালোভেরা চুলে কিভাবে ব্যবহার করব

 অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা অ্যালোভেরা কে আপনারা হয়তো সকলেই চিনেন। বিশেষ করে ত্বক এবং চুলের যত্নের জন্য এটা অনেক জনপ্রিয়। কাউকে এটা থাকা পুষ্টিকর উপাদান গুলো আমাদের চুল ও তার ভালো রাখতে সাহায্য করে। চুল ও ত্বক ভালো রাখার পাশাপাশি আমাদের স্বাস্থ্যকেও ভালো রাখতে সাহায্য করে। কারন কি এতে থাকা পুষ্টিগণ উপাদান গুলো আমাদের বিভিন্ন রোগের হাত থেকে বাঁচতে সাহায্য করে। 

অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা - অ্যালোভেরা চুলে কিভাবে ব্যবহার করব

তাই আপনারা চাইলে এলোভেরা শরবত তৈরি করে খেতে পারেন এটা আপনাদের জন্য অনেক উপকারী। এখন কথা হলো তো কিংবা চুলের যত্নে এলোভেরা কিভাবে ব্যবহার করতে হবে। এটি জানতে হলে পুরো পোস্টটিকে ভালো করে পড়তে হবে।

অ্যালোভেরার উপকারিতা- অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা

এলোভেরা একটি প্রাকৃতিক উপাদান। এই প্রাকৃতিক উপাদান রয়েছে অনেক অসাধারণ গুণ। অ্যালোভেরা একই সাথে চুল, ত্বক এবং স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে। আসলে ব্যাপারটা খুব মজাদার। একটা মাত্র জিনিস কিভাবে আমাদের চুল ত্বক এবং স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে।

 আপনারা যদি আপনাদের শরীরকে চাঙ্গা রাখতে চান তাহলে অবশ্যই এলোভেরা জল খাওয়া শুরু করে দিন। কারণ গবেষণায় জানা গেছে যে, এটি যেমন আমাদের চুল ও ত্বকের জন্য অনেক উপকারী তেমন এটি আমাদের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে অনেক সাহায্য করে। তাহলে চলুন জেনে নেই অ্যালোভেরা খাওয়ার কিছু উপকারিতা সম্পর্কে।

আমাদের শরীর থেকে টক্সিন উপাদান বের করে দিতে সাহায্য করে

আমাদের শরীরের কর্মক্ষমতাকে বাধাগ্রস্ত করে। আমাদের শরীরে কাজ করে। খারাপ ব্যাকটেরিয়া গুলো আমাদের শরীরের জন্য অনেক ক্ষতিকারক। তেমনি এই টক্সিন পদার্থ আমাদের শরীরের জন্য অনেক ক্ষতিকারক। এ টক্সিন পদার্থ যদি দিন দিন বেঁচে থাকে তাহলে আমাদের শরীরের কার্যক্ষমতা কমে যাবে। 

এতে করে আমাদের শরীর আরো দুর্বল এবং অসুস্থ হয়ে পড়বে। ফলে নানা ধরনের রোগের বাসা বাধে আমাদের শরীরে। আমরা যদি এলোভেরা খায় তাহলে, এই অ্যালোভেরা আমাদের শরীর থেকে খারাপ টক্সিন পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে। তার পাশাপাশি এলোভেরা খাওয়ার ফলে আমাদের শরীরে এন্টিঅক্সিডেন্ট এর পরিমাণও বৃদ্ধি পায়। এতে করে আমাদের শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়। আর শরীর থেকে খুব সহজেই খারাপ ব্যাকটেরিয়া গুলো দূর করা যায়। এতে আমাদের শরীর ও স্বাস্থ্য দুটোই ভালো থাকে।

হার্ট সুস্থ রাখতে সাহায্য করে

অনেক গবেষণায় জানা গেছে যে এলোভেরা খাওয়ার পরে। শরীরের রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যায়। এর ফলে শরীরের প্রতিটা অংশে অক্সিজেন গিয়ে পৌঁছায়। যে কারণে আমাদের শরীরের প্রতিটা অংক ভালো থাকার পাশাপাশি হার্টের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং হার্ট সুস্থ থাকে। সেই সঙ্গে এটি রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল এর মাত্রা কমাতেও সাহায্য ক্রে। 

কারন কি আমাদের মধ্যে অনেকে হয়তো জানেন যে, খারাপ পোস্টাল রক্ত সঞ্চালনে বাধা দেয়। আর আমাদের হার্ট থেকে যেহেতু রক্ত সঞ্চালন হয় তাই সরাসরি প্রভাবটা গিয়ে  হার্টের উপরে পড়ে। তাই এতে করে আমাদের হার্টের সমস্যা হতে পারে। তাই অ্যালোভেরা আমাদের হাটকে সুস্থ রাখতে অনেক সাহায্য করে। আমাদের শরীরের রক্ত সঞ্চালন যদি ঠিক থাকে তাহলে আমাদের হার্ট ও ঠিক থাকবে। এছাড়াও হার্টের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হাত থেকেও বেঁচে থাকা যাবে ।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

আপনি যদি সুস্থভাবে দীর্ঘদিন পর্যন্ত রোগমুক্তভাবে বাঁচতে চান তাহলে, অবশ্যই আপনার শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে হবে। কারণ এ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর ফলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন রোগের হাত থেকে বেঁচে থাকতে পারি। আর এ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য প্রয়োজন আন্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবার অথবা ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার। 

আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। অ্যালোভেরা রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এর একটি ভালো উপাদান। তাই অ্যালোভেরা ক্ষার মাধ্যমে আপনারা আপনাদেরও প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারবেন। এতে করে আপনারা সুস্থভাবে জীবন যাপন করতে পারবেন।

ত্বকের সমস্যা দূর করে

অ্যালোভেরা রয়েছে প্রচুর পরিমাণে এনটিঅক্সিডেন্ট। এছাড়াও এদের রয়েছে ভিটামিন এ এবং ভিটামিন সি। আপনার হয়তো অনেকেই জানেন যে ভিটামিন এ এবং ভিটামিন সি আমাদের শরীরে এক ধরনের হিসেবে কাজ করে। আমাদের শরীরের পাশাপাশি তো কেউ কিছু খারাপ ব্যাকটেরিয়া রয়েছে। যেগুলো আমাদের ত্বকের বিভিন্ন ধরনের ক্ষতি সাধন করে থাকে। 

এ ব্যাকটেরিয়া গুলোর কারণে মূলত ব্রণের সমস্যা কিংবা বলে রাখার সমস্যা এসব হয়ে থাকে। তাই আপনারা যদি যৌবনকে ধরে রাখতে চান তাহলে অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করুন। কারণ এটা থাকার ভিটামিন উপাদান এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান গুলো আপনার ত্বকের ব্যাকটেরিয়া গুলো নির্ভর করতে সাহায্য করবে এবং ত্বকে আরো উজ্জ্বল ও কোমল করে তুলতে সাহায্য করবে।

অ্যালোভেরা চুলে ব্যবহার করার নিয়ম। অ্যালোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা

অ্যালোভেরা  বিশেষ করে মেয়েদের জন্য অনেক জনপ্রিয়। কারণ এটি মেয়েদের ত্বক চুল। ভালো রাখতে সাহায্য করে এটা শুধু মেয়েদের জন্য নয় ছেলেদের জন্য অনেক উপকারী। এটি মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেদেরও ত্বক ও চুল ভালো রাখতে সাহায্য করে। শুধু ত্বক ও চুল না এটি আমাদের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে। 

কিন্তু এখন কথা হলো এটি যেহেতু আমাদের চুলের জন্য অনেক উপকারে। তাহলে এলোভেরা কে আমরা কিভাবে ব্যবহার করতে পারি। যে নিয়মে ব্যবহার করলে আমাদের চুলের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা খুব সহজেই দূর হয়ে যাবে। তাহলে চলুন অ্যালোভেরা কিভাবে চুলের ব্যবহার করলে চুল আর লম্বা ঘন এবং সুন্দর হয়ে ওঠে।

অ্যালোভেরার তেল

আপনারা চাইলে এলোভেরা তে বাড়িতে তেল তৈরি করতে পারেন। এটি আপনাদের চুলের জন্য অনেক উপকারী একটি উপাদান হবে। এটি আপনাদের খুশকি দূর করতে সাহায্য করবে, অতিরিক্ত চুল ওঠা দূর করবে, চুল দ্রুত লম্বা করতে সাহায্য করবে এবং চুল আরোও ঘন করতে সাহায্য করবে। এই তেলটি বানানোর জন্য আপনাদের প্রয়োজন হবে পেঁয়াজ বাটা, নারিকেল তেল এবং অ্যালোভেরার। 

এই তিনটি একসাথে একটি বাটিতে রেখে কোন একটি তাওয়ার উপর বসে ভালো করে জ্বাল করে নিন। জাল করার ফলে এলোভেরা পিয়াজের মধ্যে যে উপাদান গুলো রয়েছে সেগুলো খুব সহজে তেলটির সাথে মিশে যাবে। এতে করে তেলটি আরো শক্তিশালী হয়ে উঠবে। 

আর এই তেলটি যদি আপনার মাথায় আপনি ব্যবহার করেন তাহলে, এক মাসের মধ্যে এর রেজাল্ট আপনি দেখতে পারবেন। আপনারা এটিকে সপ্তাহে তিনবার ব্যবহার করুন। ব্যবহারের পরে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এটি দেওয়ার পর অন্তত ৪০ মিনিট রাখা প্রয়োজন।

অ্যালোভেরা ত্বক ও চুলে কাজ করবে ম্যাজিকের মতো

আপনারা যদি কোন ধরনের ঝামেলা না করতে চান তাহলে, গোসলের দুই ঘন্টা আগে অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারেন। গোসলের দুই ঘন্টা আগে এলোভেরা জেল পুরো মাথার স্কেলপে ভালো করে মাসাজ করে নিন। এতে করে আপনার চুলের গোড়া আরো শক্ত হবে এবং চুল দ্রুত বৃদ্ধি পাবে। আর আপনি যদি ভালো করে মাসাজ করেন তাহলে এটি আপনার ব্লাড সার্কুলেশন ভালো রাখতে সাহায্য করবে এবং চুল ঘন করতেও সাহায্য করবে। আপনারা এটিকে যদি অন্তত একমাস ব্যবহার করেন তাহলে এর একটি ভাল উপকার দেখতে পাবেন। আর এটিকে সপ্তাহে তিন অথবা চারদিন ব্যবহার করুন।

অ্যালোভেরা মুখে ব্যবহার করার নিয়মঃঅ্যালোভেরা চুলে কিভাবে ব্যবহার করব

অ্যালোভেরা আমাদের ত্বকের জন্য অনেক উপকারী কারণ এতে অনেক পরিমাণে ভিটামিন এবং মিনারেলস রয়েছে। যেগুলো সত্যি আমাদের ত্বকের জন্য অনেক প্রয়োজনীয়। এগুলো আমাদের ত্বকের সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এর পাশাপাশি আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ি চলতেও সাহায্য করে। তাই ত্বকের যত্নে এলোভেরা বেস্ট উপাদান। 

কারণ কম সময়ের মধ্যে অ্যালোভেরা ব্যবহার করে আপনারা একটি ভালো রেজাল্ট পেয়ে যাবেন। এখন কথা হল এলোভেরা আমরা মুখে কিভাবে ব্যবহার করলে এর উপকার গুলো পাবো। তাই অবশ্যই জানতে হবে, তাহলে চলুন জেনে নেই।

অ্যালোভেরা এবং দুধ

অ্যালোভেরার পাশাপাশি দুধ আমাদের উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। তাই অ্যালোভের সাথে যদি দুধ ব্যবহার করে তাহলে, ত্বকের জন্য আরো বেশি উপকারী হয়ে যাবে। বর্তমানে ইন্ডিয়া এবং বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে সাউথ কোরিয়ান সংস্কৃতি অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আপনারা সাউথ কোরিয়ান স্কিন কেয়ার ফলো করেন তাদের দেখবেন, তারা বাহিরের অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার না করে ন্যাচারালি অ্যালোভেরার ডাল থেকে চিরুনি দিয়ে দিয়ে আচরণের মাধ্যমে জেল বের করে। 

এজেলটি বের করার পর হাতে ভালো করে মিক্স করে নিতে হবে। এরপর এতে সামান্য পরিমাণে কাঁচা দুধ ব্যবহার করতে হবে। এরপর এ দুটিকে ভালোভাবে মিক্স করে নিয়ে ত্বকে ব্যবহার করুন। আপনারা যদি এটিকে দুই থেকে তিন সপ্তাহ ব্যবহার করেন তাহলে এর একটি ভালো রেজাল্ট পেয়ে যাবেন। ত্বকে ব্যবহার করার পর শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

এলোভেরা খেলে শরীরের কি উপকার হয়?

এলোভেরা খেলে শরীরের উপকার হয় কারণ এটি একটি প্রাকৃতিক উপষ্টাবিশিষ্ট উদ্ভিদ যা মৌলিকভাবে আন্তজ্বর, পেটের সমস্যা, চর্মের সমস্যা, অ্যালার্জি, পেটের গ্যাস, অস্থিরতা, ক্ষতিকর অণুরক্তচাপ সহায়তা করতে পারে। এছাড়াও, এলোভেরা ত্বকের জন্য খুবই ভালো এবং ত্বকের অস্থিরতা, পরিসরের ক্ষতি, রুজগারের পরিস্থিতি সহায়তা করতে পারে।

অ্যালোভেরা চুলে কিভাবে ব্যবহার করব?

প্রিয় পাঠক আপনি কি জানেন এলোভেরা চুলে কিভাবে ব্যবহার করতে হয়। যদি না জেনে থাকেন আজকের এই পর্ব আপনার জন্য নিচে আমরা আলোচনা করেছি। অ্যালোভেরা চুলে কিভাবে ব্যবহার করতে হয় চলুন বিস্তারিত জেনে নেই।

1. অ্যালোভেরা জেল প্রয়োজন অনুযায়ী পাকা অথবা প্রকৃতি থেকে সরাসরি অ্যালোভেরা গেল থেকে বের করুন।
2. অ্যালোভেরা জেল প্রয়োজন অনুযায়ী ছোট টুকরো করুন অথবা পাকা অ্যালোভেরা পাওয়া হলে সারিতে কেটে নিন।
3. চুলের ঝুলিটা ধুয়ে সুতা বা মড়ক বিষয়ের সাথে প্রয়োজন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় হার্বাল তেল যুক্ত করুন।
4. অ্যালোভেরা জেল অথবা টুকরো হালকা মাস্ক বা ব্রুশ দিয়ে চুলের মাঝে ম্যাসেজ করুন।
5. চুল স্ক্যাল্পে সমান প্রয়োজনীয় সুষম চুল অ্যালোভেরা লাগানোর পরে পুরো চুলে ফেলুন।
6. আপনি চুলের নিচে বা স্ক্যাল্পে যত সম্ভব প্রয়োজনীয় সময়ের জন্য অ্যালোভেরা চেপে রাখতে পারেন।
7. প্রয়োজন অনুযায়ী চুলের অংশে অ্যালোভেরা জেল যোগ করুন।
8. অ্যালোভেরা জেল যুক্ত হয়ে চুলের মাঝে ম্যাসেজ করুন এবং প্রয়োজন অনুযায়ী প্রতিস্পর্শ করুন।
9. চুল শোধা হয়ে গেলে, গুনতে চুলের জন্য শাম্পু বা কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।

এই পদক্ষেপগুলি মেনে চলে আপনি চুলের স্বাস্থ্য ও সুন্দরতা বজায় রাখতে সহায়ক হতে পারেন। আশা করছি আপনার সম্পূর্ণরূপে বুঝতে পেরেছেন।

অ্যালোভেরা জেল মুখে মাখলে কি হয়

অ্যালোভেরা জেল মুখে মাখলে প্রথমেই মুখের ত্বক কে শুষ্ক করে তুলে নিতে সাহায্য করে। এটি মুখের ত্বকে শুষ্কতা এবং আরাম দেয়। অ্যালোভেরা জেলে অনেক পোষক উপাদান ও ভিটামিন থাকে যা ত্বকের স্বাস্থ্য ও সম্প্রসারণে সাহায্য করে। এছাড়াও, অ্যালোভেরা জেল মুখে জ্বর, অস্থিরতা, চর্মের সমস্যা সহ অনেক সমস্যার চিকিৎসা করে। তাছাড়াও, এটি মুখে আন্তজ্বর এবং ব্যাক্টেরিয়াল সংক্রমণের জন্য একটি প্রাকৃতিক উপায় হিসাবে কাজ করতে পারে। সাধারণত অ্যালোভেরা জেল মুখে মাখলে মুখের চমক, স্বাস্থ্যগত প্রতিস্থাপন এবং চর্মের সুন্দরতা বাড়ায়।

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url